সংযুক্ত আরব আমিরাতে সাধারণ ক্ষমার আওতায় প্রায় ৫০ হাজার বাংলাদেশি নাগরিকে নিয়মিত হওয়ার সুযোগ দিয়েছে দেশটি । এসব বাংলাদেশি অবৈধভাবে দেশটিতে পাড়ি জমিয়েছিল । বুধবার সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জার্মানি ও সংযুক্ত আরব আমিরাত সফর নিয়ে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। মিউনিক নিরাপত্তা কাউন্সিলের বৈঠকে যোগ দিয়ে ফেরার পথে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৭-১৯ ফেব্রুয়ারি সংযুক্ত আরব আমিরাত সফর করবেন।

সংযুক্ত আরব আমিরাত সফরের বিষয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সংযুক্ত আরব আমিরাত বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম শ্রমবাজার। ইতোমধ্যেই ১৯ ক্যাটাগরিতে বাংলাদেশি কর্মী নিয়োগের জন্য আরব আমিরাতের সাথে সমঝোতা স্মারক সই হয়েছে। তাছাড়া চিকিৎসা ও প্রকৌশলসহ বেশ কিছু খাতে বাংলাদেশি পেশাজীবীদের জন্য সংযুক্ত আরব আমিরাত সরকার ভিসা উন্মুক্ত করেছে। ড. মোমেন জানান, গত বছর আগস্ট থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত আমিরাত সরকার ঘোষিত ৫০ হাজার বাংলাদেশি সাধারণ ক্ষমার আওতায় নিয়মিত হওয়ার সুযোগ পেয়েছেন। এসব বাংলাদেশি সেখানে অবৈধ হয়ে পড়েছিলেন।

১৭ ফেব্রুয়ারি আবুধাবিতে আন্তর্জাতিক প্রতিরক্ষা প্রদর্শনীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যোগ দেবেন। প্রধানমন্ত্রী আমিরাতের উপ রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, প্রতিরক্ষামন্ত্রী, দুবাইয়ের শাসক শেখ মোহাম্মাদ বিন রশীদ আল মাকতুমের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক করবেন। আবুধাবির ক্রাউন পিন্স ও আরব আমিরাতের ডেপুটি সুপ্রিম কমান্ডার শেখ মুহম্মাদ বি যায়েদ আল নাহিয়ানের সঙ্গে বৈঠক করবেন বলে আশা করা যাচ্ছে।

১৮ ফেব্রুয়ারি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রয়াত প্রেসিডেন্ট শেখ যায়েদ বিন সুলতানের স্ত্রী শাইখা ফাতিমার সঙ্গে বৈঠক করবেন। আগামী ১৯ ফেব্রুয়ারি তিনি ঢাকায় ফিরবেন। অপর এক প্রশ্নের উত্তরে ড. মোমেন বলেন, প্রধানমন্ত্রীর সফরকালে সংযুক্ত আরব আমিরাতের সঙ্গে কোনো প্রকার সামরিক চুক্তি হওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই।
তথ্যসূত্রঃ পাদ্মা নিউজ

Related Post

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •