মঙ্গলবার গ্যাস থাকবে না – মেট্রোরেলের কাজের কারণে পাইপলাইন স্থানান্তর করার জন্যে মঙ্গলবার (১৮ ফেব্রুয়ারী) রাজধানীর অধিকাংশ স্থানে গ্যাস থাকবে না। শনিবার দিনভর ভোগান্তির পর মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টা থেকে টানা ১২ ঘণ্টা রামপুরা, বনশ্রী, শান্তিনগর, কাকরাইল, গুলিস্থান, তেজগাঁও, ধানমন্ডি, আজিমপুর ও মিরপুরের একাংশে চুলা জ্বলবে না।
মেট্রোরেলের কাজের কারণে এদিন সন্ধ্যা থেকে বুধবার সকাল ৬টা পর্যন্ত টানা ১২ ঘণ্টা গ্যাস সরবরাহ বন্ধ রাখা হবে বলে জানিয়েছে তিতাস গ্যাস।

সাভারে একটি সংযোগ লাইনে ত্রু টির কারণে গত শনিবার থেকে আজিমপুর থেকে মিরপুর পর্যন্ত এলাকাজুড়ে গ্যাস সঙ্কট শুরু হয়। তিতাসের জনসংযোগ শাখার কর্মকর্তা গোলাম মোস্তাফা জানান, মঙ্গলবার মেট্রোরেল প্রকল্পের আওতায় পাইপলাইন স্থানান্তরের পর টাই-ইন কাজ চলবে। এদিন ঢাকার প্রায় অর্ধেক অংশজুড়ে গ্যাসের চাপ কমবে। অনেক এলাকায় সন্ধ্যা ৬টা থেকে পরের দিন সকাল ৬টা পর্যন্ত আবাসিক, বাণিজ্যিক, শিল্প ও সিএনজি গ্রাহকদের গ্যাস সরবরাহ বন্ধ থাকবে। এই এলাকাগুলোর মধ্যে রয়েছে মিরপুর, শ্যামলী, মনিপুরীপাড়া, আগারগাঁও, মোহাম্মদপুর, ধানমণ্ডি, গণভবন, জাতীয় সংসদ ভবন, কলাবাগান, হাজারীবাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, বুয়েট, শাহবাগ, গ্রীনরোড, বঙ্গভবন, গোপীবাগ, স্বামীবাগ, রামপুরা, দক্ষিণ বনশ্রী, নন্দিপাড়া, মগবাজার, সিদ্ধেশ্বরী, সেগুনবাগিচা, মিন্টু রোড, তেজগাঁও, খিলগাঁও, বাসাবো, মতিঝিল, কমলাপুর ও পুরান ঢাকার পুরো এলাকা। গত শুক্রবার বিকালে আশুলিয়ায় সিটি গ্যাস স্টেশনে (সিজিএস) পাইপলাইন ক্ষতিগ্রস্ত লাইনের ত্রু টি সারাতে গিয়ে গ্যাস সরবরাহ বন্ধ থাকে। ফলে শনিবার সকাল থেকে মিরপুর, মোহাম্মদপুর, গাবতলী, শ্যামলী, আগারগাঁও, ধামরাই, আশুলিয়া, আমিনবাজার ও সাভারসহ রাজধানীর আশপাশের এলাকায় গ্যাস সরবরাহ বন্ধ থাকে। এসএসসি পরীক্ষার মধ্যে শনিবার হঠাৎ করে গ্যাস সঙ্কট দেখা দিলে নগরবাসীর দুর্ভোগ চরমে ওঠে। ঘরে রান্না করতে না পেরে অনেকে রেস্তারাঁয় ছোটে। উল্লেখ্য, এখন গড়ে গ্যাস পাওয়া যায় এক হাজার ৭০০ মিলিয়ন ঘনফুট। ফলে গ্যাসের চাহিদার তুলনায় সরবরাহ কম। তিতাস গ্যাস বিতরণ কোম্পানির অধীনে যে গ্রাহক আছে তাদের পূর্ণ মাত্রায় গ্যাস সরবরাহ করা হলে দুই হাজার ৪০০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস দরকার।

###এই মাএ পাওয়া -সংঘর্ষ চলছে, কাশ্মীর হামলার মূল হোতা নিহত: ভারত নিয়ন্ত্রিত জম্মু-কাশ্মীরের পুলওয়ামা জেলায় দেশটির কেন্দ্রীয় রিজার্ভ পুলিশ বাহিনীর (সিআরপিএফ) ওপর প্রাণঘাতী হামলা চালানোর মূলহোতা ও জঙ্গিগোষ্ঠী জয়েশ-ই-মোহাম্মদের কমান্ডার কামরান সেনাবাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে নিহত হয়েছেন।বৃহস্পতিবার দেশটির সেনাবাহিনীর অভিযানে জয়েশ-ই-মোহাম্মদের এই কমান্ডার ছাড়াও আবদুল রশিদ গাজী নামে আরো এক জঙ্গি নিহত হয়েছেন। কামরান পুলওয়ামা হামলার মূলহোতা ছিলেন বলে দাবি করেছে ভারতীয় সেনাবাহিনী।

রোববার রাত থেকে পুলওয়ামার পিংলান গ্রামে জঙ্গিদের সঙ্গে টানা দশ ঘণ্টার লড়াইয়ে নিহত হয়েছেন ভারতীয় সেনাবাহিনীর এক মেজরসহ চার জওয়ান। একজন সাধারণ নাগরিকেরও মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। সোমবার সকালে দক্ষিণ কাশ্মীরের পুলওয়ামায় নতুন করে সেনাবাহিনীর সঙ্গে জঙ্গিদের গুলি বিনিময় শুরু হয়। সেখানে সেনাবাহিনীর সাঁড়াশি আক্রমণের মুখে কামরানসহ কয়েকজন জঙ্গি আটকা পড়ে। এরপরই দুই জঙ্গি নিহত হয়।ভারতীয় সেনাবাহিনী বলছে, পুলওয়ামাসহ একাধিক জঙ্গি হামলার মাস্টারমাইন্ড ছিলেন কামরান। তবে নিহত দুই জঙ্গির মরদেহ এখনও উদ্ধার করা হয়নি। ওই এলাকায় জঙ্গিরা লুকিয়ে রয়েছে, এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ, সিআরপিএফ এবং স্পেশ্যাল অপারেশন গ্রুপের সদস্যরা অভিযান শুরু করে।

গত বৃহস্পতিবার পুলওয়ামায় সিআরপিএফের গাড়ি বহরে আত্মঘাতী হামলায় কমপক্ষে ৪০ সেনা নিহত হয়। এ ঘটনার পর থেকে ভারতের নানা প্রান্তে কাশ্মীরিদের ওপর হামলা, মারধরের খবর পাওয়া যাচ্ছে। পুলওয়ামা হামলার প্রতিশোধে কঠোর অভিযানের দাবিতে দেশটির বিভিন্ন প্রদেশে বিক্ষোভ করেছে ভারতীয়রা। এমন দাবির মাঝেই সোমবার নতুন করে জঙ্গি হামলার মুখে পড়ে ভারতীয় সেনাবাহিনী।

বৃহস্পতিবারের হামলার পর সিআরপিএফ জানিয়েছে, ওই এলাকায় নিরাপত্তা দ্বিগুণ করা হয়েছে। সেনাবাহিনীর গাড়ি বহরেও গতিতেও পরিবর্তন আনার কথা জানিয়েছেন সিআরপিএফের ডিজি রাজীব ভাটনগর।

তিনি বলেন, কনভয়ের সময়েও পরিবর্তন করার কথা হয়েছে। কনভয় থামা ও বাকি গতিবিধিও নিরাপত্তাবাহিনী ও জম্মু-কাশ্মীর পুলিশের সঙ্গে সংযোগ বজায় রেখেই করা হচ্ছে।পুলওয়ামা হামলার পরই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, এই হামলার জবাব দেবে ভারত। কোথায়, কখন, কীভাবে শক্তিশালী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে সে বিষয়ে সেনাবাহিনীকে পূর্ণ স্বাধীনতা দেয়া হয়েছে। ইতিমধ্যে আত্মঘাতী হামলায় ৪৪ জওয়ান নিহত হওয়ার পর প্রতিবেশী পাকিস্তানের বিরুদ্ধে প্রতিশোধ নিতে শুরু করেছে ভারত।ইতিমধ্যে পাকিস্তানি পণ্য আমদানিতে ২০০ শতাংশ শুল্কারোপের ঘোষণা দিয়েছেন ভারতের অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি। এদিকে কাশ্মীরের পাঁচ বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতাকে দেয়া নিরাপত্তা প্রত্যাহারের কথা জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

Related Post