বাংলাদেশের সব টেলিভিশন চ্যানেল আগামী ১২ মে’র মধ্যে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ ব্যবহারের মাধ্যমে তাদের সম্প্রচার কার্যক্রম শুরু করবে বলে জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

সোমবার সচিবালয়ে বেসরকারি টেলিভিশন মালিকদের সংগঠন অ্যাটকোর কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক শেষে তিনি সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘১২ মে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের এক বছর পূর্তি হবে। এর মধ্যে বাংলাদেশের টেলিভিশন চ্যানেলগুলোর বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের মাধ্যমে সম্প্রচারের ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট কর্তৃপক্ষ চ্যানেলগুলোকে তিন মাস বিনামূল্যে সেবা দেবে জানিয়ে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘১২ মে নাগাদ বাংলাদেশ কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট কোম্পানি সব টিভির ডাটা অপটিক্যাল ফাইবারের মাধ্যমে গাজীপুরের সজীব ওয়াজেদ ভূ-উপগ্রহ কেন্দ্রে নিয়ে যাবে এবং সেখান থেকে আপলিংক ও ডাউনলিংক করবে। সে জন্য বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট কর্তৃপক্ষ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে।’

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট কর্তৃপক্ষ সবার সঙ্গে আলোচনা করে টেলিভিশনগুলো কী দরে স্যাটেলাইট ব্যবহার করবে তা নির্ধারণ করবে এবং বাংলাদেশ কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট কোম্পানি বিটিভির মাধ্যমে কেবল অপারেটরদের প্রয়োজনীয় সংখ্যক এলএনবি (লো নয়েজ ব্লক) যন্ত্র সরবরাহ করবে বলে জানান তথ্যমন্ত্রী।

তিনি আরও বলেন, সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী কেবল অপারেটরদের বাংলাদেশের টেলিভিশন চ্যানেলগুলো ক্রমানুসারে প্রথম দিকে রাখার কথা। আজকেও পুনরায় আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নিয়েছি যে আমরা সব কেবল অপারেটরদের স্মরণ করিয়ে দেব, বাংলাদেশের টেলিভিশন চ্যানেলগুলোকে তারা প্রথমে রাখবে। প্রথমে সরকারি চ্যানেল, পরে সম্প্রচারের তারিখ অনুযায়ী বেসরকারি চ্যানেলগুলো থাকবে, এরপর বিদেশি চ্যানেলগুলো রাখবে।

বিদেশি টিভিতে দেশি বিজ্ঞাপন প্রচার আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ১ এপ্রিলের পর থেকে কেউ যদি এ আইন ভঙ্গ করেন, সরকারের এ নির্দেশনা পালন না করেন তাহলে আমরা আইন অনুযায়ী ব্যবস্থায় যাব।’

এ সময় অ্যাটকোর জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি ও একাত্তর টিভির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোজাম্মেল বাবু বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু স্যাটেলইটে চলে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আমরা সম্মিলিতভাবে একটি বা দুটি বান্ডিলে অথবা একই বান্ডিলে পে-চ্যানেল হিসেবে আত্মপ্রকাশ করতে চাই। কেবল অপারেটররা যে গ্রাহক ফি দর্শকদের কাছ থেকে নেয় তার অত্যন্ত যৌক্তিক একটা অংশ আমাদের দেয়ার জন্য আবেদন করব।’

প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান, প্রধানমন্ত্রীর সাবেক তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী, তথ্যসচিব আবদুল মালেক, বাংলাদেশ কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেডের চেয়ারম্যান শাহজাহান মাহমুদহসহ অ্যাটকোর সদস্যরা সভায় উপস্থিত ছিলেন।-ইউএনবি

Related Post

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave A Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *