স্নায়ুযুদ্ধ-পরবর্তী বিশ্বে অস্ত্রের ব্যবসা সবচেয়ে চাঙা অবস্থায় রয়েছে। মধ্যপ্রাচ্য ও এশিয়ায় অস্ত্রের চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় গত পাঁচ বছরে এমন পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। এই পাঁচ বছরে সবচেয়ে বেশি অস্ত্র কিনেছে সৌদি আরব। দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে ভারত।

এদিকে বিগত কয়েক বছরে অস্ত্র আমদানি বাড়িয়েছে বাংলাদেশ। সামরিক বাহিনীকে ত্রিমাত্রিক রূপ দিতে অত্যাধুনিক যুদ্ধ সরঞ্জাম কিনছে বাংলাদেশ।

সুইডেনের স্টকহোম ইন্টারন্যাশনাল পিস রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (এসআইপিআরআই) বার্ষিক প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে। সোমবার এসআইপিআরআই-এর ‘ট্রেন্ডস ইন ইন্টারন্যাশনাল আর্মস ট্র্যান্সফার-২০১৮’ শিরোনামে তাদের বার্ষিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।

প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, বিশ্বে অস্ত্র আমদানিকারক দেশের তালিকায় প্রথম অবস্থানে রয়েছে সৌদি আরব, দ্বিতীয় অবস্থানে ভারত। আর বাংলাদেশের অবস্থান ২৫ তম। এবং বাংলাদেশের প্রতিবেশী দেশ পাকিস্তানের অবস্থান ১১। বাংলাদেশের পরে অবস্থান রয়েছে কানাডার (২৬)।

স্বাধীন প্রতিষ্ঠান হিসেবে পরিচিত এসআইপিআরআই (২০১৪-২০১৮) সালের করা প্রতিবেদন অনুযায়ী, বাংলাদেশ অস্ত্র আমদানি করেছে ১.২%। যা (২০০৯-২০১৩)-তে ছিল ১%।

অন্যদিকে অস্ত্র আমদানিতে শীর্ষে থাকা সৌদি আরব গত বছর গুলোতে অস্ত্র কিনেছে ১২%। দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা ভারত অস্ত্র আমদানি করেছে ৯.৫%। এরপরের অবস্থান গুলোতে আছে মিশর, অস্ট্রেলিয়া, আলজেরিয়া, চীন, সংযুক্ত আরব আমিরাত, ইরাক, দক্ষিণ কোরিয়া, ভিয়েতনাম।

অন্যদিকে অস্ত্র রপ্তানিকারক দেশগুলোর মধ্যে শীর্ষে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। তারা বিশ্বের অস্ত্র বাজারের ৩৩ শতাংশ রপ্তানি করে। দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে রাশিয়া। পরের অবস্থান যথাক্রমে চীন, ফ্রান্স ও জার্মানির।

এই পাঁচটি দেশ বৈশ্বিক ভারী অস্ত্রশস্ত্র রপ্তানির প্রায় ৭৫ শতাংশ দখলে রেখেছে। ফ্রান্সের অস্ত্র রপ্তানি আগের তুলনায় অনেক বেড়েছে। তারা মিসরের সঙ্গে একাধিক গুরুত্বপূর্ণ অস্ত্রচুক্তি করেছে।

Related Post

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave A Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *