রাজধানীর নর্দ্দায় বাস চাপায় বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালসের (বিইউপি) শিক্ষার্থী আবরার আহমেদ চৌধুরী নিহত হওয়ার ঘটনায় শোকে স্তব্দ হয়ে পড়েছেন তার শিক্ষক ও সহপাঠীরা। বিশ্ববিদ্যালয়ের সব প্রতিযোগীতায় প্রথম হওয়া মেধাবী এই শিক্ষার্থীর এভাবে চলে যাওয়া মেনে নিতে পারছেন না তারা।

জানা যায়, মঙ্গলবার সকাল সাড়ে আটটায় বিইউপিতে ক্লাস ছিল আবরারের। ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের শিক্ষার্থী তিনি। ক্লাসে যাওয়ার জন্য সকাল সাড়ে ৭টার দিকে নর্দ্দায় যমুনা ফিউচার পার্কের সামনে দাঁড়িয়ে থাকা বিইউপির বাসে উঠতে যাচ্ছিলেন তিনি। এ সময় সুপ্রভাত পরিবহনের একটি বাস তাকে চাপা দেয়। তিনি বাসের চাকায় পিষ্ট হন। পরে তার লাশ সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। আজ বিকেলে বিইউপিতে আবরারের জানাজা অনুষ্ঠিত হবে।

দুর্ঘটনার পর যমুনা ফিউচার পার্কের সামনের রাস্তা অবরোধ করেন আবরারের সহপাঠী, বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসী। তারা ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও দায়ী ব্যক্তিদের বিচার দাবিতে স্লোগান দেন। সহপাঠীরা কিছুতেই ভাবতে পারছেন না, কিছুক্ষণ আগেও প্রাণোচ্ছল ছিল যে মানুষটি, তিনি আর নেই। পরে প্রগতি সরণির দুই পাশে সড়ক অবরোধ করে বিইউপিসহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। তবে যানবাহন ভাঙচুরের মতো কোনো অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটেনি। শিক্ষার্থীদের দাবি দোষী বাসচালকের শাস্তি। নিরাপদ সড়কের দাবিতে স্লোগানও দিচ্ছেন তারা।

বিইউপির একাধিক শিক্ষার্থীর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, খুব শান্ত ও অমায়িক স্বভাবের ছিলেন আবরার। কারও সঙ্গে কখনো মনোমালিন্য হতো না তার। সহপাঠীদের সবার সঙ্গেই ভালো বন্ধুত্ব ছিল তার।

আবরারের শিক্ষক বিইউপির আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের সহকারী অধ্যাপক শায়লা সুলতানা গণমাধ্যমকে বলেন, ‘গতকাল দুপুর তার সঙ্গে দেখা হয়েছিল আমার। অথচ আজকে আবরার আর আমাদের মাঝে নেই। এটা ভাবতেই পারছি না।’

প্রিয় এই শিক্ষার্থীর স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘এক কথায় মনে রাখার মতো ছাত্র ছিল আবরার। যেমন পড়াশোনায়, তেমনি খেলাধুলা ও বিতর্ক প্রতিযোগিতাতেও তাঁর সরব উপস্থিতি ছিল। বিশ্ববিদ্যালয়ের সব প্রতিযোগিতায় আবরার প্রথম হতো।’

আবরারের সহপাঠীরা জানান, গত আগস্টে ঢাকায় নিরাপদ সড়কের দাবিতে গড়ে ওঠা আন্দোলনেও সক্রিয় ছিলো সে। অথচ ভাগ্যের কি পরিহাস, সেই সড়কেই প্রাণ গেলো আবরারের।

Related Post

Leave A Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *