স্ত্রীকে দেখতে প্রতিদিন ৬ মাইল হাঁটেন ৯৯ বছরের এই বৃদ্ধ #সম্পূর্ণ কাহিনী শুনলে চোখে পানি চলে আসবে….

নিউইয়র্কের রচেষ্টারে বসবাসরত লুথার ইউংগারের বয়স এখন ৯৯ বছর। বিবাহিত জীবনের পার করেছেন ৫৫ বছর। তারপরও স্ত্রী অভারলির প্রতি তার ভালোবাসা ম্লান হয়নি এতটুকু। লুথার আর অভারলির সংসার ভালই চলছিল । কিন্তু ২০০৯ সালে অভারলি ব্রেন টিউমারে আক্রান্ত হয়ে রচেষ্টারের স্ট্রং মেমোরিয়াল হাসপাতালে ভর্তি হন। এরপর থেকেই পাল্টে যায় লুথারের জীবন।

শীত, গ্রীষ্ম, রোদ, বৃষ্টি- যাই হোক না কেন প্রতিদিন স্ত্রীকে দেখতে লুথার বাড়ি থেকে তিন মাইল পথ হেঁটে আসেন হাসপাতালে। আবার হেঁটে ফিরে যান বাড়িতে। গত ৯ বছরে তার এই যাওয়া আসা চলছে।লুথারের স্ত্রী এখন পক্ষাঘাতগ্রস্ত হয়ে পড়ে আছেন হাসপাতালের বেডে।কিন্তু তার প্রতি ভালোবাসা একটুও পাল্টায়নি লুথারের।
লুথার জানান, স্ত্রীকে এই অবস্থায় হাসপাতালের বেডে দেখতে তার খুব কষ্ট হয়। তারপরও প্রতিদিন তাকে দেখতে আসেন। কারণ স্ত্রীকে ছাড়া তার জীবন অসম্পূর্ণ।
কিছুদিন আগে অভারলির নিউমোনিয়া হওয়াতে তার শরীর আরও খারাপ হয়ে যায়। এ কারণে স্ত্রীর জন্য লুথারের আকুলতা আরও বেড়েছে। এ ব্যাপারে লুথার-অভারলির মেয়ে লুথেটা বলেন, ‘মায়ের এই অসুস্থতার পুরো সময় বাবা তার পাশে ছিলেন। কখনও রাতের পর রাত হাসপাতালে থেকেছেন, কখনও হাসপাতালের মেঝেতেই ঘুমিয়ে গেছেন।’

প্রতিদিন ৬ মাইল হেঁটে স্ত্রীকে হাসপাতালে দেখতে যাওয়ার কারণে রচেষ্টারের অনেকের কাছে পরিচিত মুখ হয়ে উঠেছেন লুথার ইউংগার। অনেকেই তাকে হাসপাতাল কিংবা বাড়ির পথে লিফট দিতে আগ্রহ দেখান। কিন্তু লুথার হাঁটতেই পছন্দ করেন। তিনি বলেন, ‘অনেকেই আমাকে বয়স অনুসারে কাজ করতে বলেন।তারা তাদের জায়গায় ঠিকই আছে। তারা আমাকে ঈর্ষা করে কারণ আমি ধূমপান কিংবা মদ্যপান করি না। এসব স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। যদি আমি এসব করতাম তাহলে প্রতিদিন ৬ মাইল হাঁটতে পারতাম না।’ লুথার ইউংগারের স্ত্রী অভারলির চিকিৎসা সহায়তার জন্য এরই মধ্যে একটি ফান্ড গঠন করেছেন তাদের মেয়ে লুথেরা। সূত্র: মেট্রো

(Visited 1,164 times, 1 visits today)

Related Post

You may also like...