ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) ১২তম আসরে বিশেষ একটা সুবিধা পাচ্ছেন মুসলিম ক্রিকেটাররা। মদের কোম্পানির লোগো নিয়ে কোনো মুসলিম খেলোয়াড় যদি আপত্তি জানান তাহলে সেই লোগো ছাড়া জার্সি পরে খেলতে পারবেন তারা। আর তাই আইপিএলে আইপিএলে মদের লোগো লাগানো জার্সি পরবেন না মুসলিম ক্রিকেটাররা।

ইসলাম ধর্মে যেকোনো মাদকদ্রব্যের প্রচার হারাম। সঙ্গত কারণে মুসলিম ক্রিকেটাররা আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে মদের লোগো সম্বলিত জার্সি পরেন না। কিন্তু চলমান দ্বাদশ আসরে বেশ কয়েকটি ফ্র্যাঞ্চাইজির স্পন্সর হয়েছে বিভিন্ন মদের কোম্পানি। ফলে জার্সিতে তাদের লোগো ব্যবহার করা হয়েছে। তাই মুসলিম ক্রিকেটারদের কথা চিন্তা করেই তাদের মদের লোগোবিহীন জার্সি পরার সুযোগ করে দিচ্ছে আইপিএল।

রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর দলে দুই মুসলিম ক্রিকেটার এই সুবিধা পাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন ফ্র্যাঞ্চাইজিটির ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা। তিনি বলেন, অলরাউন্ডার মঈন আলি ও পেসার মোহাম্মদ সিরাজকে সেই সুযোগ করে দেয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, মুসলিম ক্রিকেটাররা সাধারণত মদ ও তামাক প্রচারবিরোধী। আমাদের দলের হয়ে খেলছেন মঈন আলি ও মোহাম্মদ সিরাজ। মদের লোগো না পরে খেলার জন্য তারা আমাদের কাছে অনুরোধ করেছিল। তাদের বিশ্বাসের কথা মাথায় রেখে আমরা ওদের অনুরোধ গ্রহণ করেছি। ধর্মীয় সংবেদনশীলতা সম্পর্কে আমরা খুবই সচেতন।

কোনো খেলোয়াড় চাইলে এমন সুবিধা দিতে কোনো আপত্তি নেই বলে জানিয়েছেন চেন্নাই সুপার কিংসের প্রধান নির্বাহী কাশি বিশ্বনাথ। তিনি বলেন, আমরা এখনও কোনো মুসলিম খেলোয়াড়ের কাছ থেকে এরকম কোনো অনুরোধ পাননি। তবে চাইলে এ সুবিধা তারা নিতে পারবেন।

প্রসঙ্গত, এবারের আইপিএলে উল্লেখযোগ্যসংখ্যক মুসলিম ক্রিকেটার রয়েছেন সানরাইজার্স হায়দরাবাদ এবং কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবে। হায়দরাবাদে আছেন সাকিব আল হাসান (বাংলাদেশ), রশিদ খান, মোহাম্মদ নবী (আফগানিস্তান), খলিল আহমেদ, শাহবাজ নাদিম ও ইউসুফ পাঠান (ভারত)। পাঞ্জাবে আছেন মোহাম্মদ শামি ও সরফরাজ খান (ভারত), মুজিব-উর-রহমান (আফগানিস্তান)।

Related Post

Leave A Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *