গোলান মালভূমি ইসরাইলের সার্বভৌমত্ব হিসেবে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প কর্তৃক স্বীকৃতি দেয়ার বিষয়টি পুরোপুরি প্রত্যাখ্যান করেছে সৌদি আরব। আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ী গোলানের পাহাড়ি অঞ্চলটি সিরিয়ার একটি আরব ভূখণ্ড। দেশটি এ বিষয়ে ঘোষণাপত্রে ট্রাম্পের স্বাক্ষরেরও কঠোর নিন্দা জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছে।

বিবৃতিতে বলা হয়, গোলান মালভূমিতে ইসরাইলি দখলদারিত্ব মেনে নেয়ার যে উদ্যোগ মার্কিন প্রেসিডেন্ট নিয়েছেন, তা মধ্যপ্রাচ্যসহ বিশ্বশান্তির জন্য বড় হুমকি হয়ে দাঁড়াবে। গোলান মালভূমি একটি আরব ভূখণ্ড। এবং তা আরবের অংশ হিসেবেই থাকবে বলেও স্পষ্ট জানিয়ে দেয়া হয়।

সৌদি সরকারের অবস্থান জানিয়ে বলা হয়, আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ী গোলানের পাহাড়ি অঞ্চলটি সিরিয়ার একটি আরব ভূখণ্ড। ইসরাইল অবৈধভাবে দখল করে রেখেছে। দখলের মাধ্যমে অবৈধ জিনিস কখনো বৈধ হয় না। আর প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের ঘোষণার মাধমে বাস্তবতার কোনো পরিবর্তন হবে না। তাই ভবিষ্যতেও এ অঞ্চল আরবের অংশ হিসেবেই থাকবে।

ওই বিবৃতিতে বলা হয়, ট্রাম্পের ঘোষণাপত্রে স্বাক্ষরের বিষয়টি জাতিসংঘ ও আন্তর্জাতিক আইনের সুস্পষ্ট লংঘন। মার্কিন প্রেসিডেন্ট তার বিতর্কিত সিদ্ধান্ত ফিরিয়ে নিয়ে অশান্তির আশঙ্কা দূর করার আশা করা হয়। পাশাপাশি বিরোধপূর্ণ ও স্পষ্ট এমন বিষয়ে সকল দেশকে জাতিসংঘ ও আন্তর্জাতিক আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হওয়ারও আহ্বান জানায় সৌদি আরব। উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার ট্রাম্প বলেছিলেন- যুক্তরাষ্ট্র জেনেছে গোলান ইসরাইলের সার্বভৌম। আর এ কারণেই গোলান মালভূমিতে ইসরাইলের সার্বভৌমত্বের স্বীকৃতি দেয়া উচিত যুক্তরাষ্ট্রের।

Related Post

Leave A Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *