‘একটু সাইট দিন। সামনে গিয়ে ফায়ার সার্ভিসের পাইপটা একটু ধরি। ভাই মোবাইলটা সরান। ছবি তুলে কি হবে। পারলে সাহায্য করেন।’ উৎসুক জনতাকে সরিয়ে ফায়ার সার্ভিসের সঙ্গে কাজ করতে এভাবেই এগিয়ে যাচ্ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী আহমেদ সফি। সময় বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বনানীতে আগুন দেখতে উৎসুক জনতার ভিড় বাড়ছে। কামাল আতাতুর্ক এভিনিউতে যান চলাচল বন্ধ করা হলেও মানুষজন পায়ে হেটেই ঘটনাস্থলে আসছেন।
এদিকে উৎসুক জনতাকে ঠেকাতে হিমসিম খাচ্ছেন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা ফায়ার সার্ভিস জানিয়েছে, আগুনের শিখা কিছুটা কমে এসেছে। বেড়েই চলছে ধোঁয়ার পরিমাণ। দমকল বাহিনীর সদস্যরা ভবনের ভেতরে অক্সিজেন দেয়ার চেষ্টা করছেন। উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টা ৫০ মিনিটের দিকে এফআর টাওয়ারের ৯ তলায় আগুন লেগেছে। আগুন নিয়ন্ত্রণে ফায়ার সার্ভিসের ১৭টি ইউনিট কাজ করছে।

উদ্ধার কাজে হেলিকপ্টার: রাজধানীর বনানীর ১৭ নম্বর রোডের এফআর টাওয়ারে লাগা আগুন নিয়ন্ত্রণে চেষ্টা চলছে এখনও। ফায়ার সার্ভিসের ১৭টি ইউনিট কাজ করে যাচ্ছে। সেই সঙ্গে বিল্ডিংয়ের উপর থেকে হেলিকপ্টার থেকে বালু ফেলে আগুন নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা চালানো হচ্ছে। বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টা ৫০ মিনিটের দিকে এফআর টাওয়ারের ৯ তলা থেকে অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত বলে জানিয়েছেন ফায়ার সার্ভিসের কন্ট্রোল রুমের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এনায়েত হোসেন। দুপুর ২টা ৫৫ মিনিটে এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত আগুন নিয়ন্ত্রেণে আসেনি। ভবনটিতে দ্যা ওয়েভ গ্রুপ, হেরিটেজ এয়ার এক্সপ্রেস, আমরা টেকনোলজিস লিমিটেড ছাড়াও অর্ধশতাধিক অফিস রয়েছে। প্রত্যক্ষদর্শী রায়ান খান জাগো নিউজকে বলেন, আমরা তিন-চারজন নিচে দাঁড়িয়ে নাস্তা করছিলাম। ভবনটির ৯ কিংবা ১০ তলায় দাউ দাউ করে প্রচুর ধোঁয়া বের হতে দেখি আমরা। অনেককে চিৎকার করে নিচে নামতে দেখি। তখনই আমি ৯৯৯ এ ফোন দেই। পাশাপাশি আরও ২-৩ জন ফায়ার সার্ভিসে ফোন দিয়েছে। কয়েক মিনিটের মধ্যে ফায়ার সার্ভিসের একাধিক ইউনিট সেখানে উপস্থিত হয়। এর মধ্যে ল্যাডার ইউনিট (বহুতল ভবন থেকে উদ্ধারকারী সিঁড়ি) ও মোটরসাইকেল ইউনিট ছিল।
ভেতরে অনেকে আটকা পড়েছেন বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এ ছাড়া বহুতল ভবনটির পাইপ বেয়ে অনেককে নিচে নামার চেষ্টা করতেও দেখা গেছে।
যে ভবনটিতে আগুন লেগেছে সেটি পুরোটা বাইরে থেকে কাচ দিয়ে ঘেফায়ার সার্ভিসরে কর্মীরা ভবনটির কাচ ভাঙছেন যাতে ভেতরকার ধোয়া বেরিয়ে যেতে পারে।

Related Post

Leave A Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *