রাজধানীর বনানীর এফ আর টাওয়ারে অগ্নিকাণ্ডে ভবনের ভেতরে আটকে পড়াদের ছোট ছোট দলে বের করে আনা হচ্ছে। বিকেল তিনটা থেকে আটকে পড়াদের উদ্ধার করা শুরু হয় বলে জানিয়েছেন উদ্ধারকর্মীরা।

এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৪ জন মারা গেছেন বলে জানা গেছে। তাদের মধ্যে একজন কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে ও তিন জন ইউনাইটেড হাসপাতালের চিকিৎকরা মৃত ঘোষণা করেন। এছাড়া আহত হয়েছেন অনেকে। বিকেল ৪টা পর্যন্ত হেলিকপ্টার দিয়ে ভবনে ছাদ থেকে তিনজনসহ ওই ভবন থেকে ২৭ জনকে উদ্ধার করা হয়েছে।

ভবনের তের তলা থেকে বেরিয়ে আসার পর ফুটপাতে বসে মোবাইল ফোনে এসব কথা বলছিলেন আরিফ নামে এক ব্যক্তি। তিনি তের তলার ডার্ড গ্রুপের ম্যানেজার অডিট হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

আরিফ বলেন, আগুন লাগার সময় আমাদের অফিসে ৭-৮ জন ছিলাম। আমরা পাঁচবার সিঁড়ি দিয়ে নামার চেষ্টা করেছিলাম। কিন্ত ধোঁয়া আর আগুনের তাপের কারণে নামা যাচ্ছিল না। চারদিকে অন্ধকার ছিল। আমরা আবার দৌড়ে অফিসের ভেতরে ঢুকে যাই।

আরিফ বলেন, চার আশা ছেড়ে দিয়েছিলাম। নিঃশ্বাস নিতে কষ্ট হচ্ছিল। অফিসের গামছা আর তোয়ালে ভিজিয়ে মুখের ওপর ধরে রেখেছি সবাই। আর কিছুক্ষণ থাকলে হয়তো বাঁচতাম না।

আরিফ বলেন, একপর্যায়ে গ্লাস ভেঙে হাতের ইশারা করতে থাকলে ফায়ার সার্ভিসের ক্রেন জানালার কাছে যায়। তারপর ক্রেন দিয়ে প্রথমে আমি আর ইকবাল নেমে আসি। অন্যরা পরে নামতে পেরেছে কিনা তা বলতে পারছি না।

এ সময় উপস্থিত হন আরিফের স্ত্রী স্বপ্না। তারা দু’জনে একে-অপরকে জড়িয়ে ধরে কান্না করতে থাকেন। সেখানে এক হৃদয় বিদারক দৃশ্যের অবতারণা হয়। পরিবার ও সহকর্মীরা পরে তাকে নিয়ে চলে যান।

বনানীর আগুন নিয়ে প্রত্যক্ষদর্শীদের বর্ণনা

রাজধানীর বনানীতে এফআর টাওয়ার নামের ২২ তলা একটি ভবনে আগুন লেগেছে। এফ আর টাওয়ার নামে ওই ভবনটিতে আটকা পড়েছেন অনেকে। আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে কাজ করছে ফায়ার সার্ভিস। উদ্ধারকাজে যোগ দিয়েছে নৌ ও বিমানবাহিনীর সদস্যরাও। আটকা পড়াদের সেনাবাহিনীর হেলিকপ্টার দিয়ে উদ্ধার করা হচ্ছে।

এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৪ জন মারা গেছেন বলে জানা গেছে। তাদের মধ্যে একজন কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে ও তিন জন ইউনাইটেড হাসপাতালের চিকিৎকরা মৃত ঘোষণা করেন। এছাড়া আহত হয়েছেন অনেকে।

প্রাইম এশিয়া ইউনিভার্সিটি দুই বাড়ি পরেই আগুন লাগা এফআর টাওয়ারের অবস্থান। এশিয়া ইউনিভার্সিটির ১৬ তলায় অবস্থান করছিলেন ইউনিভার্সিটিটির লেকচেরার ফাতেমা খান লুবনা।

ঘটনার বর্ণনা দিয়ে তিনি বলেন, আগুন লাগার পরপরেই ১৭ তলা ভবনের ওপর থেকে দড়ি ফেলানো হয়। কিন্তু জানালার কাচ ভেঙে দড়ি ধরতে পারলেও নিচে পড়ে যান ভবনটির নয়তলার তিনজন বাসিন্দা। এতে ঘটনাস্থলেই তাদের মৃত্যু হয়।

তিনি আরও বলেন, আগুন আতঙ্কে আশপাশের অফিস বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা দেরিতে আসার কারণে ক্ষয়ক্ষতি বেশি হতে পারে বলেও জানান তিনি। বৃহস্পতিবার বেলা পৌনে একটার দিকে রাজধানীর বনানীর বহুতল এফআর টাওয়ারে ভয়াবহ আগুন লাগে।

আগুন থেকে বাঁচতে কয়েক ব্যক্তিকে ভবনটির বিভিন্ন তলা থেকে বের হতে দেখা যায়। উপায় না দেখে পরে কয়েকজন লাফ দেন। নিচে পড়ে যাওয়ার পর সঙ্গে সঙ্গে তাদের উদ্ধার করেন উপস্থিত লোকজন।

কয়েকজনকে ভবনের আশপাশে থাকা তার ধরে নিচে নামার চেষ্টা করতে দেখা যায়। তবে তাদের কেউ কেউ নিচে পড়ে যান।

ভবন থেকে নিচে পড়ে যারা আহত হয়েছেন, তাদের উদ্ধার করে অ্যাম্বুলেন্সে বিভিন্ন হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে। ভবনের ওপরে আকাশে হেলিকপ্টার টহল দিতে দেখা গেছে।

প্রত্যক্ষদর্শীদের ভাষ্য, ভবনের অষ্টম তলায় আগুন লেগেছে বলে তারা প্রথমে জানতে পারেন। পরে অন্য তলায়ও আগুন ছড়ায়। একপর্যায়ে পুরো ভবন আগুন ও আগুন থেকে সৃষ্ট কালো ধোঁয়ায় ঢেকে যায়। ফলে ঠিক কোনও কোনও তলায় আগুন ছড়িয়েছে, তা নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না।

এফআর টাওয়ারটি বনানীর কামাল আতাতুর্ক অ্যাভিনিউতে অবস্থিত। ভবনটি ১৭ তলা বলে জানা গেছে। আগুন লাগার কারণ তাৎক্ষণিকভাবে জানা যায়নি।

Related Post

Leave A Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *