সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের আলোচিত সেই শিশু নাঈম ইসলামকে ‘সুপারম্যান’ খ্যাতি দিল ভারতীয় মিডিয়া। ভারতের পশ্চিমবঙ্গের জনপ্রিয় পত্রিকাটি এই খেতাব দেওয়ার পাশাপাশি তাকে নিয়ে সুপারম্যানের মতো একটি কার্টুনও ছেপেছে।

শুধু আনন্দবাজার নয়, জিনিউজ বাংলা (২৪ ঘণ্টা) এর একটি প্রতিবেদনেও ব্যাপক প্রশংসা করা হয়েছে নাঈমের।

জিনিউজে ছবি দিয়ে সাজানো ওই প্রতিবেদনে নাঈমকে নিয়ে শিরোনাম করা হয়েছে, ‘বিগত প্রজন্মের ফোকর চাপা দিয়ে বসে আছে আগামী’।
উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার ঢাকার বনানীতে বহুতল ভবন এফআর টাওয়ারে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনার পর ফায়ার সার্ভিস উদ্ধারের সময়ে পানির পাইপের ছিদ্র পলিথিন পেঁচিয়ে ধরে ছিল শিশু নাঈম।

দৃশ্যটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ব্যাপক ভাইরাল হয়। বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার ফেসবুকের নিউজফিডে ঘুরেফিরে দেখা যায় ওই ছবি।
পঞ্চম শ্রেণি পড়ুয়া নাঈমের এই কাজের জন্য দেশ-বিদেশে এখন কেবল তারই প্রশংসা চলছে।

আগুন নেভানোর দোয়া, কোথাও আগুন লাগলে মহান আল্লাহর সাহায্য প্রার্থনা করা জরুরি

অগ্নিকাণ্ডের মতো ভয়াবহ বিপদ থেকে রক্ষা পেতে মহান আল্লাহর স্মরণের বিকল্প নেই।কোথাও আগুন লাগলে মহান আল্লাহর সাহায্য প্রার্থনা করা জরুরি। হযরত ইব্রাহীম (আ:)কে আগুনে ফেলেছিল নমরুদ। তবে মহান আল্লাহর ইচ্ছায় সেই তীব্র আগুন ইব্রাহীম (আ:) এর জন্য ফুলের বিছানায় পরিণত হয়ে যায়।

পবিত্র আল কোরআন সূত্রে, সেসময় হজরত ইবরাহিম আলাইহিস সালামকে স্পর্শ না করতে আগুনকে আল্লাহ যে নির্দেশ দিয়েছিলেন অগ্নিুকাণ্ডের সময় সে আয়াত পাঠ করেই আল্লাহর সাহায্য কামনা করতে বলা হয়েছে।

আয়াতটি হলো –

يَا نَارُ كُونِي بَرْدًا وَسَلَامًا عَلَىٰ إِبْرَاهِيمَ

উচ্চারণ : ‘ইয়া নারু কুনি বারদাও ওয়া সালামান আলা ইবরাহিম।’

অর্থ : হে আগুন! তুমি ইবরাহিমের জন্য শীতল ও নিরাপদ হয়ে যাও।’

এছাড়াও ইসলামী স্কলাররা বলেছেন আগুন লাগলে আজান দিতে। আগুনের প্রকোপ বেড়ে গেলে উচ্চ স্বরে আগুন নেভানোর নিয়তে আজান দিলেও আল্লাহর রহমতে আগুন নিভে যায়।

Related Post

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave A Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *