রমজান মাসে ইফতারের প্রধান অনুসঙ্গ হলো খেজুর। ক্ষুধা ও পিপাসায় ক্লান্ত দেহের জন্য খেজুরের বিকল্প নেই। খেজুর ছাড়া চরম ক্ষুধা ও পিপাসায় কোনো খাবারই স্বাস্থ্যসম্মত নয়।

ক্ষুধায় কাতর ক্লান্ত দেহের জন্য প্রাকৃতিক সুগার সমৃদ্ধ আদর্শ খাবার খেজুরের রয়েছে আরো অনেক উপকারিতা। খেজুর ক্লান্ত শরীরকে কর্মক্ষম করতে দ্রুত শক্তির যোগানই দেয় না বরং তা অনেক রোগেরও প্রতিষেধক।

পুষ্টিগুণে ভরপুর খেজুরের উপকারিতা বর্ণনা প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন- হজরত সাদ ইবনে আবি ওক্কাস রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি প্রতিদিন সকালে সাতটি ‘আজওয়া’ খেজুর খাবে, ওই ব্যক্তিকে বিষ ও জাদু কোনো ক্ষতি করতে পারবে না।’ (বুখারি ও মুসলিম)

তাছাড়া খেজুর খাওয়া প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সুন্নাতও বটে। তাই খাদ্যের পুষ্টি চাহিদা মেটাতে এবং বিষক্রিয়া ও জাদু থেকে বেঁচে থাকতে হাদিসে ঘোষিত ‘আজওয়া’ খেজুরসহ যে কোনো খেজুর খাওয়া উত্তম।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে খেজুর গ্রহণের মাধ্যমে সুস্বাস্থ্য লাভের পাশাপাশি সুন্নতের অনুসরনে সাওয়াব অর্জনের তাওফিক দান করুন। আমিন।

Related Post

Leave A Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *