একটি অসহায় মা, দু’টি বাচ্চা নিয়ে মাটিতে বসে ‘কাঁদছেন’। একটি বাচ্চা কোলে, আরেকটি পেছনে কাপড় দিয়ে ঝুলিয়ে রেখেছেন। মায়ের মুখটিতে অস্বাভাবিক রকমের একটি নির্মম মানবিক অনুভূতির ছাপ। এমনকি কোলে থাকা শিশুটির মুখেও সে ছাপ। যেনো তাদের ওপর কষ্টের পাহাড় ভেঙে পড়েছে। যে কারও হৃদয়ে নাড়া দেওয়ার মতো এমন করুণ দৃশ্যের একটি ছবি তুলে এক লাখ ২০ হাজার ডলার (প্রতি ডলার ৮৪ দশমিক ৩৬ টাকা দরে এক কোটি এক লাখ ২৩ হাজার ৬৮০ টাকা) মূল্যের পুরস্কার জিতেছেন মালয়েশিয়ান এক আলোকচিত্রী।

বিখ্যাত ফটোগ্রাফি অ্যাওয়ার্ড প্রতিষ্ঠান ‘হামদান ইন্টারন্যাশনাল অ্যাওয়ার্ড (এইচআইপিএ)’ ২০১৯ সালের সবচেয়ে সেরা বিজয়ী (গ্রান্ড বা প্রধান পুরস্কার) ঘোষণা করেছে ওই ছবিটির আলোকচিত্রী অ্যাডউইন ওং ওইই কিকে। এ পরিপ্রেক্ষিতে পুরস্কার হিসেবে ওইই কি এ অর্থ পাবেন।

গত ১২ মার্চ এইচআইপিএ এবারের প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করে। সে ঘোষণায় এইচআইপিএ ২০১৯ প্রতিযোগিতাটির থিম আশানুরূপ ছিল উল্লেখ করে ওইই কিকে অভিনন্দন জানায়। একইসঙ্গে প্রতিষ্ঠানটি বলে, ওইই কি’র ছবিটি একটি তীব্র মানবিক মুহূর্ত নথিভুক্ত করেছে।

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম বলছে, ছবিটি ভিয়েতনাম থেকে তোলা। দুই সন্তানের একটি মা মাটিতে বসে আছেন আশাহত হয়ে। ওই মায়ের বুকে চেপে রাখা কষ্ট কতো নির্মম হতে পারে, মুখের ছাপ থেকেই বোঝা যাচ্ছে। কষ্টের যেনো পাথর বেঁধে গেছে তার মনে। এমনকি একটি শিশুও অনুভূতি ভারী করে উপরের দিকে চেয়ে আছে। সবমিলে ‘নির্মম একটি মুহূর্ত’।

এইচআইপিএ বলছে, ওইই কি ‘অপ্রত্যাশিত’ একটি ছবি তুলেছেন। তার ক্যামেরার ক্লিকটি ‘অপরিকল্পিত’ ছিল। ছবিটি দিয়ে কী বের করে আনা হয়েছে, তা হয়তো ওইই কি নিজেও ধারণা করতে পারছেন না।

প্রতিষ্ঠানটি বিবৃতিতে এও বলেছে, বিশ্বের সবচেয়ে বড় একক প্রতিযোগিতা পুরস্কার গ্লোবাল ফটোগ্রাফি সম্প্রদায়ের কাছে উন্মুক্ত করা হলো। আর তাতে মালয়েশিয়ার ওইই কি সম্প্রতি তোলা ভিয়েতনামের একটি ছবি দিয়ে সবার চেয়ে এগিয়ে গেছেন।

দুবাইয়ের এ আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতাটিতে বিশ্বের ১২১ দেশের ১৯ হাজার আলোকচিত্রী অংশ নিয়েছিলেন। প্রতিষ্ঠানটির এবারের প্রাইজ ফান্ড ছিল চার লাখ ৫০ হাজার ডলার।

প্রতিষ্ঠানটির পুরস্কারের তিনটি ক্যাটাগরি রয়েছে। একটি হলো পোর্টফোলিও (গল্প বলার মতো), আরেকটি গগনচারী ফটোগ্রাফি (ভিডিও) এবং অপরটি সাধারণ। প্রত্যেকটির বিজয়ীই কমপক্ষে হলেও ২৫ হাজার ডলার পাবেন। কিন্তু মালয়েশিয়ান আলোকচিত্রী এইচআইপিএ’র গ্রান্ড পুরস্কার পেয়ে জিতেছেন এক লাখ ২০ হাজার ডলার।

Related Post

Leave A Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *