পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালীতে জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. জাহাঙ্গীর হোসাইনকে খুশি করতে একটি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে রাতে ছাত্রীদের এনে নাচ পরিবেশনের অভিযোগ উঠেছে। সোমবার রাতে উপজেলার মৌডুবি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সোমবার দুপুরে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে মাধ্যমিক পর্যায়ের প্রধান শিক্ষকদের ত্রৈমাসিক সভা ও দুদকের সততা সংঘের সভার আয়োজন করা হয়। সেখানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পটুয়াখালী জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. জাহাঙ্গীর হোসাইন। সন্ধ্যা ৭টা ১০ মিনিটে নৈশ্য ভোজ ও রাত্রিযাপনের উদ্দেশ্যে উপজেলা সদর থেকে ২০ কিলোমিটার দূরের মৌডুবি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে তাকে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোকলেছুর রহমান নিয়ে যান। সেখানে রাতে ওই শিক্ষা কর্মকর্তাকে খুশি করতে তাৎক্ষণিকভাবে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকসহ কয়েকজন শিক্ষক আশপাশের ছাত্র/ছাত্রীদের বাড়ি থেকে জরুরি ভিত্তিতে খবর দিয়ে নিয়ে আসেন। ওই কর্মকর্তাকে খুশি করতে ছাত্রীদের নাচ পরিবেশনের আয়োজন করা হয়। কক্ষ বন্ধ করে একের পর এক হিন্দি ও বাংলা গান বাজিয়ে ছাত্রীরা নাচ দেখান। ওই কক্ষে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোকলেছুর রহমান, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আলাউদ্দিন ও প্রস্তাবিত মৌডুবি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জহিরুল ইসলাম টুকুসহ কয়েকজন উপস্থিত ছিলেন। রাত ৯টায় ইউএনওর হস্তক্ষেপে অনুষ্ঠান শেষ হয়।

স্থানীয়রা বলেন, অফিসারকে খুশি করতে রাতে এভাবে ছাত্রীদের দিয়ে নাচ দেখানো ঠিক হয়নি। এটা আমাদের কালচার?

মৌডুবি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক আলাউদ্দিন খান বলেন, জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা স্যার আসছেন। তাই একটা রুমের মধ্যে ছেলে-মেয়েরা নাচ পরিবেশন করেছে।

এ বিষয়ে জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. জাহাঙ্গীর হোসাইন বলেন, স্কুলে রাতের বেলায় কক্ষের মধ্যে অনুষ্ঠান হলে সমস্যা কি? বেআইনি কিছু হয়েছে কি-না? আয়োজন আমি করিনি। প্রতিষ্ঠানের ছেলে-পেলে করেছে। আমি ওদেরকে দুই একটা উপদেশ দিয়েছি।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মাশফাকুর রহমান বলেন, বিষয়টি শুনে তাৎক্ষণিক আয়োজনটি বন্ধ করা হয়।

Related Post

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave A Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *