শাসকরা বেশি মিথ্যা কথা বললে দেশে দুর্যোগ নেমে আসে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

বুধবার নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন।

রিজভী বলেন, প্রবাদ আছে- শাসকরা বেশি মিথ্যা কথা বললে দেশে দুর্যোগ নেমে আসে। দেশে এখন দুর্যোগ থামছেই না। ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে মানুষ পুড়ে যাচ্ছে, দোকানপাট-বাড়িঘর ও বিভিন্ন স্থাপনা আগুনে পুড়ে ছাই হয়ে যাচ্ছে, লঞ্চ ও নৌকা ডুবে শত শত মানুষ ডুবে যাচ্ছে, নারী-শিশু নির্যাতনের বিভীষিকায় সারা জাতি স্তম্ভিত, চারদিকে শুধু মড়ক ও বধ্যভূমি।

বিএনপির এ নেতা বলেন, গত কয়েক দিন আগে এই আওয়ামী মিডিয়াগুলোতে খালেদা জিয়ার গৃহকর্মী ফাতেমা বেগমকে নাকি বেতন দেয়া হচ্ছে না বলে মিথ্যা রিপোর্ট করেছে।

‘আমরা খোঁজখবর নিয়ে জেনেছি, ফাতেমা বেগমের বাবাকে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে, ভয়ভীতি দেখিয়ে ম্যানেজ করে এই সংবাদ প্রচার করা হয়েছে। ফাতেমার পরিবারকে তার প্রাপ্য ছাড়াও অগ্রিম টাকা দেয়া হয়েছে।’

তিনি বলেন, ফাতেমা আদালতের নির্দেশনায় খালেদা জিয়ার সঙ্গে আছেন। বেগম জিয়া নিজের হাঁটা-চলাতে অসুবিধা হয়। তার একজন সাহায্যকারী দরকার হয়। সেই বিবেচনায় ফাতেমা তার সঙ্গে আছেন। এটিও এখন হিংসুক সরকারের সহ্য হচ্ছে না।

তারা নিজেদের প্রপাগান্ডা মিডিয়ায় এ নিয়ে গল্প তৈরি করছে এবং সরকারি হুমকির মুখে নানাজনকে নানা কথা বলতে বাধ্য করছে অভিযোগ করেন রিজভী।

তিনি আরও বলেন, আজ সংবাদপত্রে প্রকাশিত হয়েছে, ফাতেমার মা বলেছেন, তিনি মাসে মাসে টাকা পান এবং সেই টাকা তিনি নিজেই নিয়ে আসেন। অথচ ফাতেমাকে নিয়ে সরকার জনগণের মধ্যে বিভ্রান্তি ছড়ানোর চেষ্টা করছে।

রিজভী বলেন, কই আওয়ামী মিডিয়াগুলোতে তো সুবর্ণচরের কবিরহাটে ধর্ষিত নারীর আত্মীয়স্বজনদের সাক্ষাৎকার প্রচার করেনি। সিলেটে কলেজছাত্রী খাদিজাকে শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগ নেতা কুপিয়েছিল, কই সেই ছাত্রীর পরিবারের আর্তনাদ তো প্রচার করা হয়নি। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে আত্মস্বীকৃত নারী নির্যাতনকারীর অত্যাচারের শিকার ছাত্রীদের আত্মীয়স্বজনদের সাক্ষাৎকার তো প্রচার করা হয়নি।

রিজভী বলেন, দেশে নারী-শিশু নির্যাতন মহামারী আকার ধারণ করেছে। বাসে, ট্রেনে, স্কুল-কলেজ, পরীক্ষাকেন্দ্র ও বাসাবাড়িতে নারী নির্যাতনের হিড়িক পড়েছে। কই তাদের পরিবারের আত্মীস্বজনদের সাক্ষাৎকার তো প্রচার করা হয়নি?

‘এ ধরনের অসংখ্য ঘটনা যা লিখতে গেলে দিস্তার পর দিস্তা কাগজ শেষ হয়ে যাবে। আসলে খালেদা জিয়ার গৃহকর্মী ফাতেমাকে নিয়ে আওয়ামী দু-তিনটি দলদাস মিডিয়া যে অপপ্রচার ছড়াচ্ছে, সেটির উদ্দেশ্যই হচ্ছে প্যারোল নিয়ে তাদের মিশন সফল হয়নি। এ জন্যই ওই মিডিয়াগুলো সরকারের নির্দেশে এ ধরনের নোংরা খেলায় মেতেছে।’

তিনি বলেন, আমরা সতর্ক করতে চাই- এই দলদাস মিথ্যাবাদী মিডিয়াগুলোকে, তারা যেন খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানকে নিয়ে মিথ্যা গল্প রচনা বন্ধ করে।

Related Post

Leave A Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *