সাফারি পার্কে সাদা বাঘের জন্ম নেওয়ার ঘটনা এটাই প্রথম এবং দেশে দ্বিতীয়। গত ১৯ জুলাই চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায় একটি সাদা বাঘের জন্ম হয়েছে, যা দেশে প্রথম। গাজীপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কে এই সাদা বাঘের জন্ম প্রায় মাস খানেক আগে হলেও কয়েকদিন ধরে এটিকে মায়ের সঙ্গে ঘুরতে দেখা যাচ্ছে। বাঘিনীর তিন শাবকের মধ্যে দুইটি হয়েছে ধূসর এবং একটি সাদা। সোমবার পার্কে গিয়ে দেখা যায়, নতুন শাবকরা বাঘিনীর সঙ্গে খেলা করছে। কখনও তারা শুয়ে থাকা মা বাঘের উপরে উঠছে, আবার নামছে। মা বাঘও বাচ্চাদের মাঝে মধ্যে জিহ্বা দিয়ে চেটে বাচ্চাদের আদর করছে, কখনও দুধ পান করাচ্ছে পার্কের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রফিকুল ইসলাম বলেন, এই পার্কের কোর সাফারি জোনে দ্বিতীয়বারের মত একটি বাঘিনী গত ৮ অগাস্ট তিনটি শাবকের জন্ম দেয়। “তিনটি শাবকের মধ্যে রয়েছে একটি সাদা। এর আগে একই বাঘিনী ২০১৭ সালেও তিনটি শাবকের জন্ম দিয়েছিল। সব মিলিয়ে সাফারি পার্কে এখন মোট বাঘের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১২তে।” তিনি বলেন, এর মধ্যে চারটি পুরুষ ও আটটি স্ত্রী বাঘ। তবে সাফারী পার্কে সাদা বাঘের জন্ম হওয়া এটিই প্রথম ঘটনা। এর আগে গত ১৯ জুলাই চট্টগ্রামের চিড়িয়াখানায় প্রথমবারের মতো সাদা বাঘের জন্ম হয়।
২০১৩ সালে অফ্রিকা থেকে ধূসর বর্ণের ছয়টি বেঙ্গল টাইগার এ পার্কে ছাড়া হয়েছিল। ধূসর বাঘের সাদা শাবক জন্মের ব্যপারে রফিকুল বলেন, “জিনগত কারণে এটি হয়ে থাকে। জন্মদাতা বাঘ দম্পতির কোনোটির মধ্যে হয়ত সাদা বৈশিষ্ট্যের জিন লুক্কায়িত ছিল, যা প্রকট হিসেবে একটি শাবকের মধ্যে সঞ্চারিত হয়েছে। এজন্য সাদা শাবকের জন্ম হয়েছে।”পার্কের বন্যপ্রাণী পরিদর্শক আনিসুর রহমান জানান, গত ৮ অগাস্ট একটি আফ্রিকান জাতের ধূসর রংয়ের মা বাঘিনী তিনটি শাবকের জন্ম দেয়। এর মধ্যে একটির রং সাদা। তবে শাবকদের নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করে পার্ক কর্তৃপক্ষ এক মাস পর এ ঘটনা প্রকাশ করে। জন্মের পর থেকেই মা ও তার শাবকরা সুস্থ রয়েছে। তারা নিয়মিত মায়ের দুধ পান করছে আর শাবকদের দুধ পানের কথা বিবেচনা করে মা বাঘিনীকে অতিরিক্ত খাবার দেওয়া হচ্ছে। মা বাঘিনী বাঘের কিউরেটর নুরুন্নবী বলেন, শাবকরা মায়ের সাথে সারাক্ষন খুনসুটিতে ব্যস্ত থাকে, শাবকদের কখনও চোখের আড়াল হতে দেয় না বাঘিনী।তবে অচেনা কাউকেই দেখলেই রেগে যায় বাঘিনী। আরও এক বছর লোকচক্ষুর আড়ালেই রাখা হবে শাবকদের। ছয় মাস পর্যন্ত শাবকরা মায়ের দুধ পান করবে, তারপর থেকে তাদের মাংস দেওয়া হবে।

Related Post