টাঙ্গাইলের সখীপুরে রাতের আধারে নারীর সঙ্গে দেখা করতে গিয়ে জনতার গণধোলাইয়ের শিকার হয়েছেন এক ইউপি চেয়ারম্যান। বৃহস্পতিবার (২৫ এপ্রিল) রাতে উপজেলার দাড়িয়াপুর ইউনিয়নের দাড়িয়াপুর মাজারপাড় এলাকায় ঘটনাটি ঘটে।
পাশ্ববর্তী বাসাইল উপজেলার কাউলজানী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. হাবিবুর রহমান হবি তালুকদার এ গণধোলাইয়ের শিকার হয়েছেন। পরে গুরুতর আহত অবস্থায় রাতেই ওই ইউপি চেয়ারম্যানকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
স্থানীয় ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, বেশ কিছুদিন আগে বাসাইল উপজেলার কাউলজানী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. হাবিবুর রহমান হবি তালুকদার সখীপুর উপজেলার দাড়িয়াপুর মাজারপাড় এলাকার আজাহার উদ্দিনের মেয়ে শারমিন আক্তারের (২২) বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটাতে সহযোগিতা করেন। বেশ কয়েক দফা সালিশীর মাধ্যমে তার বিবাহ বিচ্ছেদ সম্পন্ন করতে সহায়ক ভূমিকা পালন করেন। যার সুবাদে ওই চেয়ারম্যান ও মেয়েটির মধ্যে মুঠোফোনে কথোপকথনের মাধ্যমে সখ্যতা গড়ে ওঠে। বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে আটটার দিকে মোটরসাইকেলযোগে ইউপি চেয়ারম্যান গোপনে মেয়েটির সঙ্গে দেখা করতে এলে স্থানীয়রা কৌশলে গরুচোর দাবি করে গণধোলাই দিয়ে আটকিয়ে রাখেন। পরে রাতেই স্থানীয় ও বাসাইলের মাতাব্বররা ঘটনাস্থল এসে ওই চেয়ারম্যানকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেন।

উপজেলার ৭ নম্বর দাড়িয়াপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আনছার আলী আসিফ ও স্থানীয় ইউপি সদস্য ওয়াহাব আলী এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।
দাড়িয়াপুর ইউনিয়নের সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান এস এম শাইফুল ইসলাম শামীম বলেন, ‘রাতেই খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে হবি চেয়ারম্যানকে উদ্ধার করি। তবে বিষয়টি নিতান্তই ভুল বোঝাবুঝি বলে দাবি করেন তিনি।
এ প্রসঙ্গে গণধোলাইয়ের শিকার কাউলজানী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. হাবিবুর রহমান হবি তালুকদার বলেন, ‘ওই মেয়েটির বাড়ির পাশ দিয়ে আমি সখীপুর থেকে বাড়ি ফিরছিলাম। তবে স্থানীয়রা আমাকে গরুচোর ভেবে আমার ওপর হামলা চালায়। পরে আমার পরিচয় নিশ্চিত হওয়ার পর তারা আমাকে ছেড়ে দেয়।’

Related Post

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave A Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *