কিছুদিন আগে শ্রীলঙ্কার রাজধানীতে আইএস কর্তৃত সিরিজ বোমা হামলার দায় স্বীকার করার পর আসাদুজ্জামান নূরের একটি ভিডিও অনলাইনে ভাইরাল হয়ে পড়ে। ভিডিওটিতে তাকে আইএস নিয়ে বক্তব্য দিতে দেখা যায়।এ সময় ভিডিওতে সাবেক সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূরকে বলতে শোনা যায়, ‘আইএস মানে ইসলামিক স্টেট নয়, আমি ইসরায়েলি স্টেট বুঝি। ভবিষ্যতে যদি আবিষ্কার হয়, আইএসের মূল হোতা ইসরায়েল তাহলে আমি বিস্মিত হব না!’
এদিকে ভিডিওটি সম্পর্কে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ২০১৮ সালের আগস্ট মাসের দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ব্যবসায় প্রশাসন ইনস্টিটিউট (আইবিএ) মিলনায়তনে আয়োজিত জাতীয় শোক দিবসের এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন।

এছাড়াও তিনি মৌলভিবাজারে একই বছর আয়োজিত এক শ্রমিক সমাবেশেও এমন বক্তব্য দিতে দেখা যায়। তখন তিনি স্পষ্ট করে বলেন, ‘আমি যতোটুকু বুঝি এখন সবার মুখে মুখে আইএস।’‘আইএসরা জার্মান, আমেরিকা, পাকিস্তানসহ বিশ্বের নানান দেশে হামলা চালায়। কিন্তু আমরা জানি ইসলামের সবচেয়ে বড় শত্রু হলো ইসরায়েল। এই আইএসদের ঘাটি সিরিযায়। সেখান থেকে ইসরায়েল মাত্র ৫০ মাইল দুরে। তারা কেন ইসরায়েলে গিয়ে বোমা ফাটায় না?’এ সময় তিনি আরও বলেন, ‘এজন্য আমি আইএস মানে ইসলামিক স্টেট বলি না। আমি বলি আইএস মানে ইসরায়েল স্টেট। এরা সারা পৃথিবীতে ইসলামের ভাবমূর্তি নষ্ট করার জন্য এমন করছে।’এদিকে সেই ভিডিওটিতে ইসলাম বিষয়ে তাঁর আরও বক্তব্য পাওয়া যায়। তিনি বলন, ‘রাসুল সা. যখন মক্কা বিজয় করে ফিরছেন তখন পতাকা হাতে একজন সাহাবা বললেন হে রাসুল আল্লাহ আজ তো আমরা সবকিছু শেষ করে ফেলবো।’

রাসুল বললেন, ‘আজ তো আমরা তাদের শেষ করতে যাচ্ছি না। আজ আমরা মুহাব্বাতের জন্য যাচ্ছি ভালবাসার জন্য যাচ্ছি।’বিজয়ের আনন্দে শত্রুপক্ষের জন্য এমন কথা বলা খুবই স্বাভাবিক। আমরা যখন মুক্তিযুদ্ধ থেকে বিজয়ীবেশে ফিরছিলাম তখন আমাদের মধ্যেও এমন উত্তেজনা কাজ করেছে। অনেকে অঘটনও ঘটিয়েছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।
তিনি বলেন, ‘আমি খুব ছোট মানুষ এ নিয়ে আমার দীর্ঘ বক্তব্য দেওয়ার কোনো সুযোগনেই। সবশেষে বলবো এখানে যারা তারা মাদরাসায় পড়েছে না ইংলিশ মিডিয়ামে পড়েছে সেটা দেখার বিষয় না তারা তো আমাদেরই সন্তান। ধান তো সেই জমিতে হয় যেটা ধান হওয়ার উপযোগী।’‘ধান হওযার আবহাওয়া না থাকলে সেই জামিতে ধান হবে না। তাই আমাদের দেখতে হবে এই আবহাওয়াটা কারা সৃষ্টি করছে।’‘এই ক্ষেত্রটা কারা সৃষ্টি করছে সেটা জানা সবচেয়ে জরুরী। এবং আমাদের সন্তানরা যেন সেই দিকে ধাবিত না হয়, সেদিকে না যায় এটা খেয়াল রাখতে হবে আমাদেরই।’

Related Post

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave A Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *