চলার পথে ট্রেনে কর্মরত- পিতা-পুত্রের মধ্যে সচারচার দেখা হবে এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু কর্মব্যস্ততার কারণে সবাই এখন সেই সুযোগ পান না। তবে ট্রেনে কর্মরত পিতা ও পুত্রের মধ্যে এক অদ্ভুত দেখা পাওয়ার খবর প্রকাশ হয়েছে।

খবরে প্রকাশ, বাবা সীমান্ত এক্সপ্রেস ট্রেনের গার্ড। তিনি খুলনা থেকে ট্রেন নিয়ে যাচ্ছিলেন চিলাহাটি। আর ছেলে পার্বতীপুর থেকে ট্রেনের জুনিয়র ট্রন টিকেট এক্সামিনার (টিটিই)। ছেলে দিনাজপুর থেকে পার্বতীপুর হয়ে ট্রেন নিয়ে যাচ্ছিলেন রাজধানী অভিমুখে। কিন্তু পথেই ডিউটিরত অবস্থায় দেখা হয়ে গেল বাবার সঙ্গে।

তবে এই দেখার সঙ্গে আর দশটা ‘দেখা’র পার্থক্য রয়েছে। ট্রেন যখন ফুলবাড়ি রেল স্টেশন অতিক্রম করছিল তখন বাবা ট্রেনের শেষদিকে গার্ডরুমে আর ছেলে ওয়াসিবুর রহমান শুভ তখন দ্রুতযান এক্সপ্রেসের ইঞ্জিনের কাছাকাছি একটি কামরায়।

বাবার সাথে চলন্ত অবস্থায় এমন দেখায় হলো খুবই স্বল্প সময়ের কুশল, আর সেই সময়টাকে কাজে লাগিয়ে ছেলে মোবাইলে বাবাকে কেন্দ্রে রেখে তুলে ফেলেন সেলফি। আর এই মুহূর্তটি অনন্য হয়ে যায়।

ছবিটি সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করলে এমন মুহূর্তকে নেটিজেনরা মহাভাগ্যের হিসেবে অভিহিত করেন। খায়রুল ইসলাম নামের একজনের মন্তব্য, ‘এমন পিতা পুত্র হওয়া সৌভাগ্যের!’ স্বপন আমান নামের একজন লিখেছেন, ‘আমাদের কপালে হয়তো এমন ছবি নেওয়ার সৌভাগ্য হবে না, তবে সুন্দর হয়েছে ছবিটা।’

ছেলে ছবির ক্যাপশনে লিখেছেন, বাবা এবং আমি, ফুলবাড়ি স্টেশনে ক্রসিং চিলাহাটিগামী সীমান্ত এবং ঢাকাগামী দ্রুত্যযান।।। বাবা=অন ডিউটি ওয়ার্কিং গার্ড । আমি= অন ডিউটি জুঃটিটিই ।

‘মা, আমাকে নিয়ে যাও, তোমায় ছাড়া ঘুম আসে না আমার’

রাজধানীর শিশু হাসপাতালের টয়লেট থেকে উদ্ধার করা নবজাতকের বাবা-মাকে খুঁজতে তেজগাঁও বিভাগের ডিসি বিপ্লব কুমার সরকারের ফেসবুক পেজে একটি পোস্ট দেয়া হয়েছে। পোস্টটি অনেককে আবেগাপ্লুত করেছে।

পোস্টটি হুবহু তুলে ধরা হলো-

‘মা, আমাকে নিয়ে যাও, তোমায় ছাড়া ঘুম আসে না আমার’।

এই নিষ্পাপ শিশুটিকে শেরে বাংলা নগর থানাধীন শিশু হাসপাতালে পাওয়া গিয়েছে। শেরে বাংলা নগর থানা পুলিশের তত্ত্বাবধানে শিশুটি শিশু হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

এই নিষ্পাপ শিশুটি ফিরে পাক তার মা-বাবাকে। মা-বাবার কোল আলোকিত করে বেড়ে উঠুক আসল পরিচয়ে। মা-বাবার কোল ভরে উঠুক সুক্রন্দসী এই নিষ্পাপ শিশুটির কান্না ও হাসিতে।

যদি কোন সহৃদয়বান ব্যক্তি শিশুটির মা-বাবা/পরিচিত জনকে চিনে থাকেন বা তাদের সম্পর্কে কোন তথ্য জেনে থাকেন, নিচে উল্লেখিত মোবাইল নম্বরে যোগাযোগ করার জন্য অনুরোধ জানানো হলো:

ওসি (শেরে বাংলা নগর থানা): ০১৭১৩৩৯৮৩৩৫ এসি (তেজগাঁও জোন): ০১৭১৩৩৭৩১৭৮।

নবজাতকটিকে দত্তক নিতে এরই মধ্যে কাড়াকাড়ি লেগে গেছে। বাংলা নগর থানায় একের পর এক আসছে ফোন। ফুটফুটে মেয়ে শিশুটিকে দেখতে ও দত্তক নিতে ভিড় করছেন শতাধিক মানুষ।

নিরাপত্তার জন্য শিশু হাসপাতালের ওই কেবিনের বাইরে মোতায়েন করা হয়েছে অতিরিক্ত পুলিশ।

নকলে বাধা দেওয়ায় কলেজ শিক্ষককে মারধর

পরীক্ষার হলে নকল করতে না দেওয়ায় পাবনার শহীদ বুলবুল কলেজের বাংলা বিভাগের এক প্রভাষককে মারধর করার ঘটনা ঘটেছে। ওই কলেজ শিক্ষকের নাম মাসুদ আহমেদ। তিনি ৩৬তম বিসিএসে শিক্ষা ক্যাডারে প্রভাষক হিসেবে যোগদান করেন।

জানা গেছে, গত ৬ মে এইএসসি পরীক্ষার উচ্চতর গণিত পরীক্ষা ছিল।পরীক্ষা চলাকালীন দুজন শিক্ষার্থী একে অপরকে নকল করার চেষ্টা করলে প্রভাষক মাসুদ আহমেদ বাধা দেন।

এ ঘটনার জেরে গত ১২ মে কলেজ থেকে বাড়ির উদ্দেশে রওয়ানা হলে কলেজের প্রধান ফটকের সামনে মাসুদ আহমেদকে আটকায় কিছু বহিরাগত যুবক। তারা তাকে মারধর করে।এক পর্যায়ে তার পিঠে লাথি মারে এক যুবক।মারধরের একটি সিসিটিভির ফুটেজে এই চিত্র দেখা যায়।

এদিকে কলেজের প্রভাষক মাসুদ আহমেদকে মারধরের ঘটনায় একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে কলেজ কর্তৃপক্ষ। হামলার নিন্দা জানিয়ে কলেজ শিক্ষক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক জানান,তারা বিষয়টি স্থানীয় প্রশাসনকে অবহিত করেছেন।

Related Post

Leave A Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *