যুগের পর যুগ পৈশাচিক ভাবে অনেক গৃহবধূ কেই হত্যা করা হয়েছে, এর কোনটার সুবিচার কি আমরা পেয়েছি?তবে এভাবে আর কত! চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ থানা পুলিশ সালমা বেগম (২৪) নামে এক গৃহবধুর লাশ রোববার দুপুরে উপজেলার ঘনিয়া এলাকা থেকে উদ্ধার করেছে। এর আগে ওই গৃহবধু হাতের রগ কেটে এবং গলায় ওড়না পেচিয়ে ঘরের আড়ার সাথে আত্মহনন করে বলে পুলিশ জানায়। যদিও সালমার পিতা মহসিন অভিযোগ করে বলেছেন, তার মেয়েকে হাতের রগ কেটে হত্যা করে ঘরের আড়ার সাথে লাশ ঝুলিয়ে আত্মহত্যা করেছে প্রচারণা চালাচ্ছে তার শশুড় বাড়ির লোকজন। পুলিশ এই ঘটনার বিষয়ে জানার জন্য জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সালমার শাশুড়িকে থানায় নিয়ে এসেছে।

জানা গেছে, ঘনিয়া গ্রামের সিঙ্গাপুর প্রবাসীর মো. মাহফুজুর রহমানের (বাবু) সাথে পাশ্ববর্তী হুগলি গ্রামের মহসিন মিয়ার মেয়ে সালমার কয়েক বছর পুর্বে বিয়ে হয়।
তাদের মাহমুদ নামে দুই বছর একটি সন্তান রয়েছে। রোববার দুপুরে সালমাকে তার শশুড় বাড়ি ঘনিয়া গ্রামের পাটওয়ারী (পতিশ) বাড়ির ঘরের আড়ার সাথে ওড়না পেচানো অবস্থায় ঝুলন্ত লাশ দেখতে পায় লোকজন। এসময় তার হাতের রগ কাটা দেখতে পায়। সংবাদ পেয়ে ফরিদগঞ্জ থানা পুলিশের ওসি (তদন্ত) অহিদুল ইসলামের নেতৃত্বে থানা পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে সালমার লাশ উদ্ধার করে। এদিকে সালমার পিতা মহসিন মিয়া জানান, তার মেয়ে শশুড় বাড়ির নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। তারাই তাকে মেরে ঝুলিয়ে রেখেছে। এব্যাপারে তারা হত্যা মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

Related Post

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •