নির্মাণ করছেন ডিপজল – মনোয়ার হোসেন ডিপজল। ঢালিউডের অন্যতম সেরা খলনায়ক। বাবা-মাকে হারানোর বেদনা থেকে এবার তিনি নির্মাণ করতে যাচ্ছেন বৃদ্ধাশ্রম। ইতিমধ্যে রাজধানীর মিরপুরে একটি বৃদ্ধাশ্রমের কাজ শুরু করেছেন তিনি। যার ৬০ ভাগ কাজ সম্পন্ন হয়েছে।

ডিপজল জানান, আগামী বছরের ডিসেম্বরের মধ্যে ২০০ সিটের এ বৃদ্ধাশ্রমটি উদ্বোধন করা হবে। বাবা-মাকে হারানোর বেদনা থেকেই এ পরিকল্পনা হাতে নিয়েছেন তিনি। ‘বাবা-মা নাই বলেই আমার আগ্রহ বেশি। আমার মা দেড় বছর আগে মারা গেছেন। পৃথিবীতে উনিই আমার সবচেয়ে আপন ছিলেন। মা-বাবা যার নাই তার দুনিয়াতে কিছু নাই। মা থাকলে ভালো লাগত।’

তিনি আরও বলেন, ‘যাদের বাবা-মা বেঁচে আছে তাদের যত্ন করুন। বাবা-মার ঠিকানা মাথায় হওয়া উচিত। আপনার বাবা-মাকে যদি বৃদ্ধাশ্রমে রাখি তাহলে আপনার চোখে খারাপ লাগার কথা। দয়া করে সবাই নিজ নিজ বাবা-মাকে আগলে রাখুন।’

উল্লেখ্য, এক সময়ের দাপুটে এ খলনায়ক চলচ্চিত্রে এসেছিলেন নায়ক হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে। ঘটনাক্রমে খলনায়ক হিসেবে অভিনয় করে খ্যাতি অর্জন করেন। যাকে সবাই ‘ভয়ংকর বিষু’ হিসেবেও চেনে।

১৯৮৬ সালে তার প্রথম চলচ্চিত্র ‘টাকার পাহাড়’ মুক্তি পায়। তারপর করেন ‘হাবিলদার’। বছর পাঁচেক পর কাজী হায়াতের ‘তেজি’ সিনেমাতে প্রথমবারের মতো ‘এন্টি হিরো’ হিসেবে পর্দায় হাজির হন। টানা একযুগের বেশি সময় খলনায়ক হিসেবে দাপট দেখিয়েছেন ঢাকার চলচ্চিত্র ইন্ডাস্ট্রিতে।

পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়ার জন্য সবাইকে মুশফিকের অনুরোধ

সবাইকে নামাজ কায়েম করার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন জাতীয় দলের টেস্ট অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। নিজের ৩০তম জন্মদিনে ভক্ত ও সমর্থকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে এ আহ্বান জানান তিনি।

মুশফিক বলেন, হ্যাঁলো আসসালামু আলাইকুম। আশা করি সবাই ভালো আছেন। এই দিনে আপনাদের অনেক শুভেচ্ছা ও ভালোবাসা পেয়েছি। সেজন্য আমি সবার প্রতি কৃতজ্ঞ। তবে শুধু এই দিনটা নয়, গোটা মাসটাই আমার জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ।

১২ বছর আগে এই মাসেই জাতীয় দলে টেস্ট অভিষেক হয়েছিল আমার। এই দিনে আমার বাবা-মা, চাচা-চাচী ও ফ্যামিলির সবার প্রতি আমি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছি। তারা সবসময় আমার পাশে ছিলেন, এখনো আছেন। স্পেশাল থ্যাঙ্কস টু মাই বিউটিফুল ওয়াইফ। আমাকে সারপ্রাইজ দেওয়ার জন্য এবং সবসময় পাশে থাকার জন্য।

আমার সব ফ্রেন্ডসদের ধন্যবাদ, তারা আমার জীবনের গুরুত্বপূর্ণ অংশ। কেননা আমার জীবনের জার্নিটা সহজ ছিল না। কিন্তু তারা সবসময় সঙ্গ দিয়েছেন। এছাড়া আমার কোচ ও টিচারদের অসংখ্য ধন্যবাদ। আশা করি ভবিষ্যতেও আপনারা আমাদের পাশে থাকবেন।

এরপর সবাইকে নামাজ পড়ার অনুরোধ জানিয়ে মুশফিক বলেন, ‘এই দিনে আপনাদের প্রতি ছোট একটা রিকোয়েস্ট, আপনারা যে যেখানে যে অবস্থায় থাকুন না কেন পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ কায়েম করার চেষ্টা করবেন। এটা অনেক গুরুত্বপূর্ণ। আপনারা যদি আমাকে ভালোবেসে থাকেন তাহলে সহজ এই কাজটা করার চেষ্টা করবেন। আর হ্যাঁ, চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি ও ত্রিদেশীয় সিরিজে আমরা যেন ভালো করতে পারি সেজন্য আপনাদের দোয়া চাই। আশা করি আবারো কোনোদিন দেখা হবে। আল্লাহ হাফেজ।’

যে ৬টি খাবার না জেনেই দিনের ভুল সময়ে খেয়ে মারাত্মক ক্ষতি করছেন আপনার শরীরের!

কয়েকটি খাবার দিনের নির্দিষ্ট সময়ে খাওয়া ভীষণ জরুরি। অন্যথায় শরীরের ক্ষতি হতে পারে। এ বিষয়ে সম্প্রতি একটি রিপোর্ট প্রকাশ করেছে হেল্থটিপস পোর্টাল। রিপোর্ট অনুযায়ী, গবেষণায় দেখা গিয়েছে, কিছু খাবার দিনের যে কোনও সময়ে খাওয়া উচিত নয়!

যেমন বিশেষজ্ঞরা রাত্রে কলা খেতে বারণ করেন। এর কারণ হিসেবে তাঁরা জানান, রাত্রে কলা খেলে ঠান্ডা লাগার সম্ভাবনা থাকে। এখন দেখে নিন, কোন জিনিসটি দিনের কোন সময়ে খাওয়া নিরাপদ —

দুধ— বিশেষজ্ঞদের মতে, রাতে দুধ খাওয়া উচিত। দুধ হজম করতে বেশি সময় লাগে। এই কারণে দিনের বেলা দুধ খেলে আলস্য হতে পারে।

দই— দিনের বেলা দই খেলে তা হজমে সাহায্য করবে। কিন্তু রাতে খেলে উলটো ঘটনা হয়। সেক্ষেত্রে হজমে সমস্যা হতে পারে।

ভাত— রাতে জমিয়ে নয়, ভাত খান দুপুরে। রাতে খেলে মেদ জমতে পারে শরীরে।

আপেল— সকালে উঠে আপেল খেলে শরীর থাকবে ঝরঝরে। এর মধ্যে থাকা পেকটিন কোষ্ঠকাঠিন্য রুখতে সাহায্য করে।

মিষ্টি— খাওয়ার পরে মিষ্টিমুখ করাই আমাদের রীতি। তবে মেদ জমাতে না চাইলে মিষ্টি বা আইস ক্রিম খান সকালে। রাতে খেলেই বিপদ।

কলা— অনেকেই ভাবেন বিকেলে ফল খাওয়া উচিত নয়। কিন্তু কলা খাওয়ার সেরা সময় বিকেল। তবে অবশ্যই খালি পেটে খাবেন না। কথায় বলে, খালি পেটে জল, ভরা পেটে ফল।

Related Post

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave A Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *