ফেনীতে এক গৃহকর্মীকে বর্বরোচিতভাবে নির্যাতনের অভিযোগে লাভলী আক্তার নামে এক গৃহকর্তীকে আটক করেছে ফেনী মডেল থানা পুলিশ। বর্তমানে গৃহকর্মী রত্না আক্তার বৃষ্টি ফেনী জেলা সদর হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। শিশু বয়সে এধরনের নির্যাতনে বৃষ্টির ভবিষ্যতে মানষিক সমস্যা দেখা দিতে পারে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

ফেনীর পরশুরাম উপজেলার মধ্যম ধনিকুন্ডা গ্রামের রফিকুল ইসলামের মেয়ে রত্না বেঁচে থাকার তাগিদে ফেনীর দাগনভূঞা উপজেলার সিন্দুরপুর ইউনিয়নের নারায়নপুর গ্রামের লাভলী আক্তারের বাসায় কাজ নেন। লাভলী আক্তার গৃহকর্মী বৃষ্টিকে ঢাকায় তার মেয়ে মেরীর বাসায় কাজে পাঠান। সেখানে মেরী তাকে কারণে-অকারণে মারধর করতেন। মেরী কখনো কাঠের বেলুন, আবার কখনো লাঠি দিয়ে বেধম মারধর করেন। মেয়েটি সেখানে অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে ফেনী নিয়ে আসেন। গত দুই মাস ধরে লুকোচুরি করে ফেনীর বাসায় চিকিৎসা করান লাভলী আক্তার। এরমধ্যে আজ সকালে পুনরায় মারধর করলে তার ঠোঁট কেটে যায়। এমতবস্থায় কোনোভাবে রক্ত বন্ধ করতে না পারলে সোমবার দুপুরে ফেনীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করিয়ে পালিয়ে যান। এটি স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনেরকর্মীদের নজরে আসলে তারা পুলিশকে অবহিত করেন। পুলিশ মেয়েটিকে উদ্ধার করে ফেনী সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন। এবং অভিযুক্ত লাভলী আক্তারকে আটক করেন। শিশু গৃহকর্মীর গলা, মাথা, হাত, পিঠসহ শরীরের বিভিন্ন অংশে ক্ষত চিহ্ন রয়েছে। বর্বরোচিত এঘটনায় বিচার দাবি করেছেন স্থানীয়রা। এরিপোর্ট লেখা পর্যন্ত গৃহকর্মী বৃষ্টির আত্মীয়-স্বজনের খোঁজ পাওয়া যায়নি।
ফেনী মডেল থানার ওসি তদন্ত মো.শহীদুল ইসলাম জানান, শিশুটিকে উদ্ধার করে পুলিশ হেফাজতে ফেনী সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। এঘটনায় পুলিশ লাভলী আক্তারকে আটক করেছে। মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

এব্যাপারে ফেনী জেলা সদর হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক আনোয়ারুল ইসলাম জানান, শিশুটিকে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। এত কম বয়সে শিশুটিকে এভাবে নির্যাতন করায় আগামীতে তার মানষিক সমস্যাও দেখা দিতে পারে।

– এধরনের ন্যাক্কারজনক ঘটনায় অপরাধীর দৃষ্টান্তমূলক শাস্ত দাবি করেছেন স্থানীয়রা।

Related Post

Spread the love
  • 286
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    286
    Shares