দেহ বিক্রি করা মেয়েটার নাম হয় পতিতা। কিন্তু তাকে পতিতায় পরিণত করা পুরুষের আলাদা কোনো নাম নেই।
বেশ্যালয়ে থাকা মেয়েটার নাম হয় বেশ্যা।কিন্তু বেশ্যালয়ে ভিড় করা পুরুষদের আলাদা কোনো নাম নেই।

পুরুষদের কাছে টাকার বিনিময়ে দেহ বিক্রি করা নারী ‘বেশ্যা’ উপাধি পায়।কিন্তু যেই পুরুষ তার দেহ চাহিদা পূরণে টাকা উড়ায় পতিতা পল্লীর আঙিনায় সেই পুরুষের আলাদা কোনো উপাধি দেয়া হয় না। বেশ্যাগামী পুরুষদের স্থান সমাজে হয় কিন্তু বেশ্যালয়ের নারীদের স্থান সমাজে নেই। রেলস্টেশন,রাস্তার মোড়ে দাঁড়িয়ে থাকা মেয়েগুলোকে দেখলেই ঘৃণা চলে আসে।দিনের আলোয় এদের মুখে তাকিয়ে থুতু ছিটিয়ে ফেলতে ইচ্ছে করে অথচ রাতের আধারে এদেরই জড়িয়ে ধরে শারীরিক চাহিদা পূরণ করতে সামান্য দ্বিধা কাজ করে না মনে।যেখানে দিনের আলোয় বেশ্যা দেখলে তওবা করা হয়,দিনশেষে সেইখানেই আবার তালি বাজিয়ে করা হয় বাহবা..

নারী বেশ্যা হয়,নারী ধর্ষিতা হয়,নারীর সতীত্ব নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয়।বেশ্যার কথা বলতে গেলেই নাকি পাপ হয় অথচ গুগল/ইউটিউব ঘেটে পর্নগ্রাফি দেখার সময় পাপ হয় না!
নারী বেশ্যা,নারী নষ্টা,নারী পতিতা,নারী পণ্য,নারী সমাজের কলঙ্কিত ধর্ষিতা হয়।এই নারীগুলোর মাঝে পবিত্রতা নেই কিন্তু এদের পবিত্রতাকে নষ্ট করে দেওয়া ওই পুরুষগুলোর মাঝে সেই পবিত্রতা আছে কি?কোন জবাব আছে???
আপনাদের মতামতটি জানাবেন..
কেউ বাজে কমেন্ট করবেন না…………

Related Post