ধেয়ে আসছে ট্রেন। সময় বাঁচাতে এভাবে দৌড়ে ট্রেন লাইন পারাপার করতে গিয়ে প্রায়ই দুর্ঘটনার শিকার হন অনেক চলাচলকারী।
মহাখালী রেল ক্রসিং, ১৩ অক্টোবর।
ছবি: দীপু মালাকার

রেললাইন / রেলক্রসিং চলাচলে করণীয়
যারা মালিবাগ থেকে মগবাজার যাবেন তাদের জন্য রেল লাইনে ধরে হেঁটে যাওয়াটা সহজ। তাই আজকাল অনেক লোকজন রেল লাইন ধরে হাঁটেন। এমন লোকজনও দেখেছি মালিবাগ থেকে এফডিসি রেল ক্রসিং পর্যন্ত হেঁটে যান। মাত্র ৩০ মিনিটেই কাওরান বাজার পৌছে যাচ্ছেন অথচ রাস্তায় গাড়ি করে ১ঘন্টায়ও পৌছাতে পারবেন না।
এতে কয়েকটা জিনিস যেটা খেয়াল করেছি তা হল;
১) মানুষজন প্রায়শই মোবাইলে কথা বলতে বলতে রেললাইন ধরে হাটতে থাকে ফলে অনেক সময় তার অগোচরে মুহূর্তেই ট্রেন চলে আসতে পারে। রেলক্রসিং এ সিগন্যালের আওয়াজ পাওয়া যায় তবে দুই রেলক্রসিং এর জায়গা নিরিবিলি আর সেখানে ট্রেনের সিগন্যালের আওয়াজ পৌছায় নাই আর অনেক সময় ট্রেন চলে আসতে পারে। ঘটে যায় দূর্ঘটনা।
২) কানে এয়ারপিস দিয়ে গান শুনতে শুনতে যায় যা আরেকটি কারণ দূর্ঘটনা ঘটার। অনেক সময় অনেকে বিভিন্ন চিন্তা মগ্ন হয়ে হাটেন ফলে অনেক সময় ট্রেন আসার ব্যপারটি তার চিন্তামগ্ন থাকার কারণে অগোচরে থাকে। ফলে ঘটে দূর্ঘটনা। বেশ কয়েকদিন আগে এক বয়স্ক চাচাকে দৌড়ে গিয়ে সরিয়ে নিয়ে আসছিলাম।
৩) আপনি যে দিক দিয়ে রেল লাইনে হাটবেন তার ডানপাশ লাইন বরাবর রেল লাইনে হাটা উচিত কারণ ডান পাশে লাইন দিয়ে হাটলে আপনি খেয়াল করতে পারবেন যে ট্রেন আসছে। অনেকেই ডান-বাম বিষয়টা জানেন না। ফলে বাম পাশ দিয়ে হাটেন। আর তাই পিছন থেকে দ্রুত গতিতে আসা ট্রেনটির হঠাত থামানো সম্ভব নয় ফলে ঘটে যায় অনাকাংখিত দূর্ঘটনা।
৪) অনেক সময় রেল লাইনে হাটার সময় যখন ট্রেন আসতে দেখে তখন তার হাটার পথ পরিবর্তন করে বাম পাশের লাইনে চলে যায়। এখন বাম পাশের লাইনেও পিছন থেকে ট্রেন আসতে পারে যেকোনও সময়। অনেক সময় ট্রেনের সাইরেন ও দিয়ে থাকে কিন্তু যে রেললাইনের উপর হাটতে থাকা পথচারীর পক্ষে অনেক সময় বুঝে উঠা সম্ভব না যে ট্রেন পিছন দিক দিয়েও আসছে। তিনি ভাবেন সামনের ট্রেনটাই ক্রস করছে তাই সাইরেনের আওয়াজ পাওয়া যাচ্ছে। আর তাই ঘটে যায় ট্রেন-দূর্ঘটনা।
যা যা সাবধানতা অবলম্বন করা উচিতঃ
১) পারত পক্ষে রেল-লাইন ধরে হাটা না উচিত। হাটলেও সম্পূর্ণ চোখ-কান খোলা রেখে চলাচল করা উচিত। ফোন এলেও তা রিসিভ করা উচিত না। জরুরী ফোন এলে রেল লাইনের বাইরে দাঁড়িয়ে ফোনে কথা বলা সেরে তবেই হাটা উচিত।
২) কোনও একদিকে ট্রেন আসলে অন্য লাইন ধরে হাটা উচিত নয়। বরং একটু অপেক্ষা করে নিরাপদ স্থানে দাঁড়িয়ে ট্রেনটিকে ক্রস করতে দেওয়া উচিত। একবার এক লাইন ধরে ট্রেন গেলে সাধারণত ১০ মিনিট সেই দিকে আর ট্রেন আসে না। তবে ১০ মিনিট হয়ে গেলে তীক্ষ্ণ দৃষ্টি রাখা উচিত।
৩) রেলক্রসিং এর স্থানে তাড়াহুড়া করে রেল লাইন অতিক্রম হওয়া উচিত নয়। রেলক্রসিং এর নিরাপদ দূরত্বে দাঁড়িয়ে ট্রেনের অবস্থান বুঝে তবেই রেলক্রসিং পার হওয়া উচিত।
৪) সন্ধ্যায় বা রাতে ট্রেনের হেড লাইট অনেক দূর থেকে দেখা গেলেও দিনের বেলায় তা দেখা সম্ভব নয়। তাই সাইরেন না বাজালে আপনার দৃষ্টি এড়িয়ে যেতে পারে। তাই সম্মুখে তাকিয়ে কোনও কিছুতে চিন্তামগ্ন না হয়ে হাঁটুন।
নিজে নিরাপদে চলুন অন্যকে চলতে সহযোগিতা করুন।
PC: mamun-chowdhury

Related Post