নিজের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ৩০০ কোটি টাকার লেনদেনের কথা শুনে রীতিমত আশ্চর্য বনে যান অটোরিকশা চালক রশিদ। পরে যখন গোয়েন্দা দপ্তরে তাকে তলব করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় তখন অবাক হন স্বয়ং গোয়েন্দারাও। ঘটনাটি ঘটেছে পাকিস্তানে।
সাধারণ একজন অটোরিকশা চালকের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ৩০০ কোটি টাকার (পাকিস্তানের মুদ্রায়) লেনদেন হচ্ছে এমন তথ্য পেয়ে অবাক হয়েছিল খোদ পাকিস্তানের গোয়েন্দা সংস্থা ফেডারেল ইনভেস্টিগেটিং এজেন্সি (এফআইএ)।
তবে এত মোটা অংকের অর্থ তার অ্যাকাউন্টে লেনদেন হচ্ছে, জানতেন না রশিদ। গোয়েন্দা সংস্থার জিজ্ঞাসাবাদে এমন তথ্যই দিয়েছেন তিনি। এফআইএ’র দপ্তরে তলব করে তাকে ওই লেনদেনের তথ্য দেখানো হয়।

এফআই’কে রশিদ জানিয়েছেন, ২০০৫ সালে স্যালারি অ্যাকাউন্ট খুলে দিয়েছিল তার কোম্পানি। সেখানে তিনি ড্রাইভারের কাজ করতেন। এক মাস আগে সেই চাকরি ছেড়ে দিয়ে এখন ব্যবসা করছেন।
তিনি বলেন, ‘সারা জীবনে একসঙ্গে এক লাখ টাকা দেখেনি। ৩০০ কোটি টাকার লেনদেন শুনে রীতিমতো ভয়ে রয়েছি।’
প্রসঙ্গত, পাকিস্তান সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে হিসাব বহির্ভূত সম্পত্তির খোঁজে তদন্তে নেমেছে গোয়েন্দা সংস্থা এফআইএ। নামী শিল্পপতি, রাজনীতিবিদদের শুরু করে সাধারণ মানুষের ব্যাংক অ্যাকাউন্টের তথ্য বের করতে গিয়ে রশিদের অ্যাকাউন্টের তথ্য খুঁজে পান তারা।

Related Post