ঢাকা: নির্মাণ শুরু হওয়ার ৯ বছর পর আনুষ্ঠানিকভাবে খুলে দেওয়া হয়েছে ৫৫ (৩৪ মাইল) কিলোমিটার দীর্ঘ বিশ্বের দীর্ঘতম সামুদ্রিক সেতু। মঙ্গলবার (২৩ অক্টোবর) চীনের ঝুহাই শহরে দেশটির প্রেসিডেন্ট শি জিন পিং সামুদ্রিক সেতুটির উদ্বোধন করেন।
চীনের মূল ভূ-খণ্ডের ঝুহাই শহরের সঙ্গে সেতুটি সংযুক্ত করবে হংকং ও ম্যাকাওকে। এটি নির্মাণে খরচ হয়েছে প্রায় ২০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার (১৫.৩ বিলিয়ন পাউন্ড)।

হংকং-ঝুহাই-ম্যাকাওয়ের মধ্যে একমাত্র পরিবহন হলো- দীর্ঘ এক ঘণ্টার ফেরি। তবে এ সেতুর সুবাদে দক্ষিণ চীনের ওই তিনটি শহরের মধ্যে যাতায়াতে মাত্র ৩০ মিনিট বা এরও কম সময় লাগবে। সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়, নির্মাণকালে নিরাপত্তা ইস্যুতে সেতুটি নিয়ে সমালোচনাও রয়েছে বেশ। কারণ নির্মাণ কাজ চলার সময় বিভিন্ন সময় কমপক্ষে ১৮ শ্রমিক নিহত হয়েছেন।

সেতুটি শক্তিশালী মাত্রার ঘূর্ণিঝড় কিংবা ভূমিকম্প প্রতিরোধী। এটি তৈরি করতে ব্যবহার করা হয়েছে চার লাখ টন স্টিল। যা দিয়ে ৬০টি আইফেল টাওয়ার নির্মাণ করা সম্ভব বলে দাবি করেছেন প্রযুক্তিবিদরা। সেতুটি চালু হওয়াতে দেশের যোগাযোগ ব্যবস্থার ব্যাপক সুবিধা বেড়ে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিতে প্রভাব ফেলবে। সেই সঙ্গে যাতায়াতও সহজলভ্য হবে ২২ বর্গ মাইলের ওই উপসাগর এলাকার ৬৮ লাখ মানুষের।
সেতুটির অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে, দক্ষিণ চীন সাগরে হংকং-ঝুহাই-ম্যাকাওয়ে যোগাযোগ স্থাপনকারী সেতুটি এ অঞ্চলের অর্থনৈতিক উন্নয়নে সমৃদ্ধ ভূমিকা রাখবে।

Related Post