টয়লেটে তৈরি করা হচ্ছে দেশবাসীর জন্য শীতের কসমেটিস #ভিডিও দেখলে আপনার শরীরে কাটা দিয়ে উঠবে এবার টয়লেটে তৈরি হচ্ছে কসমেটিস!

গ্লিসারিন , ময়দা , কাপড়ের রং এবং সুগন্ধি দিয়ে তৈরি হচ্ছে তিব্বত পমেড , ভেসলিন , ডাভ লোশন , সীসা তেল , ভাবতে ভালই লাগে থানায়, বখরা দিয়েই নাকি ব্যবসা চলছে বছরের পর বছর ধরে !!

#ভিডিও দেখলে আপনার শরীরে কাটা দিয়ে উঠবে ।শেয়ার করুন

শীত এসে গেছে তাই টয়লেটে তৈরি করা হচ্ছে দেশবাসীর জন্য শীতের কসমেটিস #ভিডিও দেখলে আপনার শরীরে কাটা দিয়ে উঠবে…VC: সাংবাদিক মীর্জা মাসুদ

Posted by Atn24online.com on Friday, November 9, 2018

ভিডিও না দেখা গেলে এখানে ক্লিক করুনঃ নানকল কসমেটিকস চেনার সহজ উপায়: সুন্দরিদের সৌন্দর্য্যবর্ধনে প্রসাধনী একটি বিরাট অংশ দখল করে আছে। প্রায়শই নারীরা বিভিন্ন বিউটি প্রডাক্টস যেমন- লিপস্টিক, নেইল পলিশ, কাজল, পারফিউম ইত্যাদি কিনে থাকেন। আর কিনতে গিয়ে নকল পণ্য নিয়ে ঘরে ফেরার ঘটনাও কম নেই। বেশীরভাগ ক্ষেত্রেই আমরা আসল নকল পার্থক্য না করতে পারার কারণে প্রতারিত হই। প্যাকেজিং এর দিকে নজর দিন পণ্যের প্যাকেট, লগোর অবস্থান সব কিছুর দিকে নজর দিন। নকল পণ্যে কিছু না কিছু বৈসাদৃশ্য আপনি পাবেন। হয়ত আপনি ম্যাক ব্র্যান্ডের একটি লিপস্টিক কিনতে যাচ্ছেন। দেখুন লোগোটি ঠিক একই জায়গায় বসানো কিনা। আসল কোম্পানির সকল প্রডাকশন একই রকম হয়। কোন হেরফের থাকে না। অনুমোদিত বিক্রেতার কাছ থেকে পণ্য কিনুন, দোকান বড় হলেই কিন্তু পণ্য নির্ভেজাল হয় না। আপনি যে ব্র্যান্ডের পণ্য কিনতে চান তাদের অফিসিয়াল সাইটে প্রবেশ করে দেখে নিন দেশের কোথায় কোথায় তাদের অনুমোদিত বিক্রয়স্থল রয়েছে। শুধু এসব জায়গা থেকেই পণ্য কিনুন। সহজেই বাঁচতে পারবেন নকল থেকে। পণ্যের রং খেয়াল করুন : নকল আই শ্যাডো, ব্লাশ, লিপস্টিক এবং পাউডার দেখা যায় আসল পণ্যের মত একই রঙের হয় না। আগেই ম্যানুফেকচারিং কোম্পানির সাইট থেকে রঙগুলো চিনে নিন। অতিরিক্ত উজ্জ্বল রং বা ফ্যাকাসে রং সবই যাচাই করে দেখুন। বারকোড, সিরিয়াল নাম্বার এবং ম্যানুফেকচারিং তথ্য দেখুন, আপনার প্যাকেটের সিরিয়াল নাম্বার এবং ভেতরের পণ্যের সিরিয়াল নাম্বার মিলিয়ে নিন। নকল পণ্যে দেখা যায় কোন একটি সিরিয়াল নাম্বার মিসিং থাকে। আবার বারকোড প্রথম ২/৩ ডিজিটে গরমিল থাকতে পারে। প্যাকেট এবং পণ্যে মিল পাবেন না পণ্য নকল হলে। আসল পণ্যে অবশ্যই উত্পাদন তারখ এবং মেয়াদ দেওয়া থাকবে সেগুলোও লক্ষ্য করুন। ব্রাশ এবং স্ঞ্জ চেক করুন :

প্যাকেজিং এবং অন্যান্য সব কিছু ঠিক থাকার পরও আপনার মেকাপ পণ্যটি নকল হবার সুযোগ থেকেই যায়। এবার পরীক্ষা করুন আপনার পণ্যটির সাথে সে জিনিসগুলো দেওয়া হয়, যেমন- মেকাপ ব্রাশ, স্পঞ্জ। নকল পণ্যে এগুলো খুবই নিম্নমানের হয়। ঘ্রাণ খেয়াল করুন: ব্র্যান্ডের পণ্যে কখনোই এমন কোন উপাদান ব্যবহার করা হয় না যা আপনার বিরক্তির কারণ হতে পারে। পণ্যের ঘনত্ব, ঘ্রাণ সবকিছুতে একটি স্ট্যান্ডার্ড বজায় রাখা হয়। তাই যখনই উত্কট গন্ধ বা এমন কোন ঘ্রাণ অনুভব করছেন যা ভাল লাগছে না তখনই আগে যাচাই করুন।

Related Post

Spread the love
  • 13.5K
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    13.5K
    Shares