বিবস্ত্র হয়ে ছাত্রীকে- অবিশ্বাস্য! স্কুলের মাঠেই সম্পূর্ণ নগ্ন হয়ে ছাত্রীকে ধর্ষণ করতে উদ্যত হলো এক শিক্ষক। এমনটাই ঘটল দক্ষিণ চীনের তাইপিং মিডল স্কুলে। গোটা ঘটনাটি ধরা পড়েছে স্কুলের সিসিটিভি ফুটেজে। চীনের সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে গিয়েছে ছবিটি। ভিডিও ফুটেজে দেখা গিয়েছে, আর পাঁচটি ছাত্রীর মতোই টিফিন টাইমে স্কুলের মাঠে খেলা করছিল একটি বাচ্চা মেয়ে। হঠাৎই নগ্ন হয়ে মাঠে ঢুকে পড়ে ৩০ বছর বয়সী ওই শিক্ষক। তার পরই পেছন দিক থেকে জড়িয়ে ধরে ওই ছাত্রীটিকে। এরপর স্কুলের দেওয়ালের দিকে টেনে নিয়ে যায়। দেয়ালে ঠেস দিয়ে প্রকাশ্যে ধর্ষণের চেষ্টা করে।
গোটা ঘটনায় তখন হতভম্ব মাঠে উপস্থিত বাকি ছাত্রছাত্রীরা। ঘটনার আকস্মিকতা কাটিয়ে তারাই খেলার শিক্ষক হাউয়ের হাত থেকে ওই ছাত্রীকে রক্ষা করে। অভিযুক্ত শিক্ষককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।
##############################################
স্কুলছাত্রীকে তুলে নিয়ে গণধর্ষণ, ভিডিও ইন্টারনেটে
গাজীপুরের কালীগঞ্জ উপজেলায় পঞ্চম শ্রেণির এক ছাত্রীকে (১২) তুলে নিয়ে নগ্ন ছবি ধারণ করে দুর্বৃত্তরা। পরে ওই ছবি ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে কয়েক দফা ধর্ষণ করেছে তারা। গণধর্ষণের ভিডিও ইন্টারনেটেও ছেড়ে দিয়েছে। এ ঘটনায় ওই ছাত্রীর মা বাদী হয়ে স্থানীয় চার যুবকের নাম উল্লেখ করে কালীগঞ্জ থানায় মামলা করেছেন। কালীগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. আবদুল হালিম মামলার এজাহারের বরাত দিয়ে জানান, উপজেলার বক্তারপুর ইউনিয়নের পঞ্চম শ্রেণির এক ছাত্রী (১২) গত ১৬ সেপ্টেম্বর বিকেলে স্কুল থেকে বাড়ি ফিরছিল। পথে ঘোষপাড়া এলাকায় পৌঁছালে সাগর রবিদাসসহ স্থানীয় চার যুবক ওই ছাত্রীকে জোর করে তুলে পাশের এক জঙ্গলে নিয়ে যায়। সেখানে তারা ওই ছাত্রীকে বিবস্ত্র করে এবং সে দৃশ্য মোবাইল ফোনে ধারণ করে। পরে নগ্ন ছবি ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে যুবকরা তাকে ধর্ষণ করে। এ সময় পুনরায় ছবি তোলা হয় ও ভিডিও ধারণ করা হয়। এ ঘটনা প্রকাশ করলে ধর্ষকরা ছাত্রীটিকে প্রাণে মেরে ফেলার এবং ধারণ করা ছবি ও ভিডিও ইন্টারনেটে প্রকাশ করার হুমকি দেয়। তাদের হুমকির পরিপ্রেক্ষিতে ধর্ষণের শিকার ওই ছাত্রী বিষয়টি কারো কাছে প্রকাশ করেনি। এ ঘটনার পর গত ৩ অক্টোবর সাগর রবিদাস ও তার সহযোগীরা পুনরায় ওই ছাত্রীকে তুলে নিয়ে ধর্ষণ করে। এরই মধ্যে ধারণ করা ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয় ধর্ষকরা। এ ঘটনায় গতকাল শুক্রবার রাতে স্কুলছাত্রীর মা বাদী হয়ে কালীগঞ্জ থানায় একটি মামলা করেন। মামলায় সাগর রবিদাস, রাজু, শ্যামল ও সঞ্জীবন রবিদাসকে আসামি করা হয়েছে। কালীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আলম চাঁদ জানান, গণধর্ষণের ঘটনায় জড়িতদের গ্রেপ্তারের জন্য পুলিশের একাধিক দল বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালাচ্ছে। তবে শনিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত কাউকে গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়নি।

Related Post

Spread the love
  • 24.3K
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    24.3K
    Shares