পরম ভালোবাসার বন্ধনে হাতে হাত রেখে জীবন কাটিয়ে দেয়ার প্রত্যয় নিয়েই বিয়ে। যুগ যুগ ধরে এ রীতি চলে আসছে।পৃথিবীতে বেশিরভাগ দেশের রীতি হচ্ছে-জীবনে একবার বিয়ে। তবে সংসার ভেঙে গেলে দ্বিতীয়বার বিয়ে দোষের কিছু নয়।কিন্তু এমন কথা কি শুনেছেন যে, কোনো একটি এলাকার সব পুরুষ দুবার করে বিয়ে করেছেন? ভারতের রাজস্থানের একটি গ্রামে এ রীতি প্রচলিত বহুদিন ধরে।

ভারত-পাকিস্তান সীমান্তের কাছের দেরাসর গ্রামটিতে প্রত্যেক পুরুষেরই দুবার বিয়ে বাধ্যতামূলক। কিন্তু তাতে কোনো সামাজিক বা আইনগত সমস্যা হয় না এ গ্রামে।কিন্ত কেন? দেখে নেয়া যাক কারণগুলো-গ্রামে প্রায় ৬০০ মানুষের বাস। গ্রামটি মূলত মুসলিম অধ্যুষিত। রয়েছে কমবেশি ৭০ পরিবার।গ্রামবাসীর দাবি, প্রত্যেক পরিবারই নাকি বংশ পরম্পরাগতভাবে বিয়ে নিয়ে এ রীতি মেনে আসছে।এক প্রকার জোর করেই ছেলেদের দ্বিতীয়বার বিয়ে দিতে বাধ্য করে তাদের পরিবার।গ্রামবাসীর দাবি, আগে গ্রামে যতজন পুরুষ বিয়ে করতেন, তাদের কারওরই প্রথম পক্ষের স্ত্রীর সন্তান হতো না। তাই দ্বিতীয়বার বিয়ে করতে হতো। সেই দ্বিতীয় পক্ষের স্ত্রীর গর্ভে নাকি সন্তান আসত।

বহুকাল ধরে এমন ঘটনাই ঘটছে। তার পর সেটিকেই রীতি হিসেবে মেনে নেন গ্রামবাসী।
এখন এমন ঘটনাই ঘটে চলেছে গ্রামটিতে। যদিও এ ঘটনার কোনো ব্যাখ্যা দিতে পারেননি কেউ-ই। গ্রামবাসীর কথায়-প্রথমবার বিয়ের পর অনেকেই দীর্ঘকাল সন্তানের জন্য অপেক্ষা করেছেন, এ রকম উদাহরণ প্রচুর রয়েছে।দ্বিতীয়বার বিয়ে করাটাকে তাই এ গ্রামে শুভ বলেই মনে করা হয়।

Related Post