গাজীপুরের কালীগঞ্জে নিজের বোনকে হত্যার অভিযোগে নিহতের ছোটভাই ও ভাবিকে আটক করেছে পুলিশ। উপজেলার জামালপুর ইউনিয়নে কলাপাটুয়া গ্রামে এই ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা জানায়, আজ থেকে ৩৫ বছর আগে আছিয়ার বিয়ে হয়। আছিয়া দীর্ঘ ১৬ বছর স্বামীর সংসার করেন। পরে শরীরের একাংশ অবশ হয়ে যাওয়ায় স্বামী তাকে ডিভোর্স দেন, তাও ১৫ বছর আগে। এ অবস্থায় আছিয়ার ঠাঁই হয় বাবার বাড়িতে। বাবার বাড়িতে ৩ ভাইয়ের মধ্যে অসুস্থ বড় বোনের দায়িত্ব নেয় ছোট ভাই নজরুল। বড় বোনের দায়িত্ব নেয়ার পর নিজের সংসারে শুরু হয় অশান্তি।

বোনকে কেন্দ্র করে কয়েকদিন পর পর স্ত্রী হোসনে আরা বাবার বাড়ি চলে যেত। ঘটনার দুইদিন আগেও স্ত্রী চলে যায়। পরে আবার ফিরে আসে। রোববার দুপুরে নজরুলের স্ত্রীর রান্না করা খাবার ভাই-বোন মিলে খায়। আর এ নিয়ে স্ত্রীর সঙ্গে ঝগড়া হয়। সন্ধ্যায় হত্যার বিষয়টি জানাজানি হয়। খবর পেয়ে রাত সাড়ে ১০টার দিকে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে এবং ছোট ভাই নজরুল ও তার স্ত্রীকে আটক করে থানায় নিয়ে যায় পুলিশ।

বিষয়টি নিশ্চিত করে কালীগঞ্জ থানা পুলিশের ওসি মো. আবুবকর মিয়া মিয়া বলেন, বোনকে হত্যার ব্যাপারে প্রাথমিকভাবে ভাই নজরুল স্বীকারোক্তি দিয়েছে। স্ত্রীকে খুশি করতে বোনকে কাঠের পিড়ি দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করেছে নজরুল। নিহতের শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। আটক নজরুলকে গাজীপুর আদালত এবং নিহতের মরদেহ শহীদ তাজউদ্দিন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে।

Related Post