বুধবার লোকসভায় এক ঘন্টা ব্যাপী তর্ক-বিতর্কের পর আনিত বিলটি পাস হয়। তার পূর্বে ভারতের কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী জে পি নড্ডা বিলটি উপর আলোচনা শুরু করেন। এরপর বিলটিকে সাধুবাদ জানালেও নানা বিষয় নিয়ে ক‌ংগ্রেস ও এআইডিএমকে এর সরব প্রতিবাদ করেন।

ভারতের আইনি স্বীকৃতি মিলল গর্ভ ‘ভাড়া’ দেয়া বা সরোগেসির। তবে এর বনিজ্য করা যাবে না, শুধুমাত্র নিকট আত্মীয়রাই সারোগেসিতে অংশ নিতে পারবেন। যা এই আইনের মূল কথা। এমন খবর প্রকাশ করেছে ভারতের আনন্দবাজার পত্রিকা। ভারতের কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রীর তার বক্তব্য বলেন, ‘আধুনিক বিজ্ঞানকে ব্যবহার করে বঞ্চিত পরিবারগুলোকেও সন্তান লাভের সুযোগ দেয়া হবে এই বিলের মাধ্যমে। কিন্তু সারোগেসির অপব্যবহার বন্ধ হওয়া জরুরি।’ চিকিৎসা বিজ্ঞান অনুসারে কোনো মহিলার সুস্থ ডিম্বাণু থাকার পরেও অনেক সময় জরায়ুর নানা সমস্যা থাকে।

যার ফলে মা হওয়া মুশকিল হয়ে যায়। তখন ঐ মহিলার ভ্রূণ অন্য এক মহিলার জরায়ুতে প্রতিস্থাপন করা হয়। এই পদ্ধতিকেই সারোগেসি বলা হয়। বিবাহিত দম্পতিরাই শুধুমাত্র এর সুযোগ পাবেন। লিভ-ইন করলে সারোগেসির অনুমতি মিলবে না। এছাড়াও সারোগেসির অপব্যবহারে কী ধরনের শাস্তি হবে, তারও স্পষ্ট উল্লেখ রয়েছে বিলে। স্বাস্থ্যমন্ত্রী নড্ডা আরো বলেন, ‘গর্ভ ভাড়ার বাণিজ্যিক প্রক্রিয়া বন্ধ করাই বিলের মূল উদ্দেশ্য। কারণ ভারত সারোগেসির বাণিজ্যিক কেন্দ্র হয়ে দাঁড়িয়েছে। গর্ভদাত্রী মা নানা বঞ্চনার শিকার হচ্ছেন।’

Related Post