২০১৮ সালের সবচেয়ে বেশি বিস্ফোরিত ফোনের তালিকায় প্রথমে রয়েছে প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান শাওমি। বাংলাদেশসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এই প্রতিষ্ঠানের বেশকিছু ফোন বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এমনকি সবচেয়ে বেশি স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে পড়ার ফোন তালিকায়ও রয়েছে শাওমি।
জার্মান সংস্থা ব্লু অ্যাঞ্জেল এক গবেষণা চালিয়ে এ তথ্য জানিয়েছে। তালিকায় অনুযায়ী, সবচেয়ে বেশি রেডিয়েশন নির্গত হয় শাওমি ফোনে। ফোনটি থেকে রেডিয়েশন নির্গত হওয়ার পরিমাণ প্রতি কিলোগ্রামে ১ দশমিক ৭৫ ওয়াট। যা হতে পারে ব্যবহারকারির ব্রেন টিউমারের কারণ!

শাওমির যত বিস্ফোরণের ঘটনা: ভারতের অন্ধ্রপ্রদেশে পূর্ব গোদাবরী জেলার রভুলাপালেমের ভাবনা সূর্যকিরণ নামে এক ব্যবসায়ীর পকেটে বাইক চালানোর সময় হঠাৎ তার শাওমি নোট ৪ মডেলের ফোন বিস্ফোরণ হয়। ভারতের বেঙ্গালুরুতে বিক্রয়কেন্দ্রেই বিস্ফোরিত হয়ে আগুন ধরে যায় শাওমি রেডমি নোট ৪ স্মার্টফোনে। ওই বিক্রয়কেন্দ্রের সিসিটিভি ফুটেজ ইউটিউবে ভাইরাল হলে বিষয়টি নিয়ে ব্যাপক আলোচনা হয়। মার্চে উড়িষ্যা রাজ্যের খেরিয়াকানি জেলায় শাওমি ফোন বিস্ফোরনে এক তরুণীর মৃত্যু হয়। ওই তরুণী ফোনে চার্জার লাগিয়ে তার এক আত্মীয়ের সঙ্গে কথা বলছিলেন।

বাংলাদেশের নারায়নগঞ্জে শাওমি মোবাইল ফোন বিস্ফোরণের একটি অভিযোগ পাওয়া যায়। খলিল নামে ওই লোকটির মোবাইল ফোনটি বিস্ফোরণের দুই মাস আগে কেনা হয়। সম্প্রতি ফেনীতে শাওমির পোকো এফ ১ ফোন বিস্ফোরণ হয়ে স্বপ্নীল মজুমদার (১৭) নামে এক কলেজছাত্রের মৃত্যু হয়।

এসব ঘটনার জেরে ২০১৭ সালের তুলনায় ২০১৮ সালে শাওমি প্রতিষ্ঠানের সব ব্র্যান্ডের ফোন বিশ্ব বাজারে বিক্রি কমে যায়। তবে শাওমি কর্তৃপক্ষ এসব বিস্ফোরণের বিষয়ে নিজেদের দায় সর্বদাই এড়িয়ে গেছে। সুত্রঃ ডেইলি বাংলাদেশ

Related Post