নামাজ, রোজা, হজ, জাকাত, পরিবার, সমাজসহ জীবনঘনিষ্ঠ ইসলাম বিষয়ক প্রশ্নোত্তর অনুষ্ঠান ‘আপনার জিজ্ঞাসা’। জয়নুল আবেদীন আজাদের উপস্থাপনায় দেশের বেসরকারি একটি টেলিভিশনের জনপ্রিয় এ অনুষ্ঠানে দর্শক-শ্রোতাদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেয়া হয়। অনুষ্ঠানটির জুমাবারের বিশেষ ৫৫৪তম পর্বে দর্শক-শ্রোতাদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন বিশিষ্ট আলেম ড. মুহাম্মদ সাইফুল্লাহ। এই পর্বে একজন দর্শক টেলিফোনে জানতে চেয়েছেন- পারফিউম, বডি স্প্রে বা ডিওডোরেন্ট ব্যবহার করলে নামাজ হবে কি না।

প্রশ্ন: পারফিউম, বডি স্প্রে বা ডিওডোরেন্ট ব্যবহার করলে কি নামাজ হবে?
উত্তর: পারফিউম, বডি স্প্রে বা ডিওডোরেন্ট ইত্যাদিতে যদি অ্যালকোহলের মাত্রা সামান্য পরিমাণে থাকে যে এর তেমন কোনো অস্তিত্ব বোঝা যায় না বা অ্যালকোহলের মাত্রা ১ শতাংশ বা ২ শতাংশ, তাহলে সেটি ব্যবহার করা নাজায়েজ নয়, নামাজ হয়ে যাবে। কিন্তু এটি নির্ভর করছে অ্যালকোহলের মাত্রা কোন পর্যায়ে রয়েছে, তার ওপর। বডি স্প্রে তো অ্যালকোহল নয়, এর লক্ষ্য হলো দুর্গন্ধ থেকে মুক্ত রাখা। একজন ওলামায়ে কেরাম তার ফতোয়ার মধ্যে বলেছেন, কোনো জিনিস যে উদ্দেশ্যে ব্যবহার করা হয়ে থাকে এবং সেই উপাদানের মধ্যে যদি ভিন্ন জিনিসও থাকে এবং সেটি যদি উপাদানের সঙ্গে বিচ্ছিন্ন কিছুই না হয়, তাহলে ওই জিনিস ব্যবহার করতে ইসলামী শরিয়ার মধ্যে কোনো বাধা নেই, এটি জায়েজ রয়েছে।

যেমন- সাবান। এহরাম অবস্থায় সুগন্ধি ব্যবহার করা নিষেধ। কিন্তু সাবান ব্যবহার করছেন, সাবানের মধ্যে ১ শতাংশ সুগন্ধি রয়েছে। শেখ রহমাতুল্লাহ আলাই বলেছেন, এটি ব্যবহার করা জায়েজ। কারণ আপনি তো সুগন্ধি ব্যবহার করছেন না, আপনি ব্যবহার করছেন সাবান। আপনার লক্ষ্য ভিন্ন। এটি খুবই সূক্ষ এবং গুরুত্বপূর্ণ মাসআলা। আপনি যে বডি স্প্রে ব্যবহার করছেন, এটি শুধু সুগন্ধির জন্য, আপনি কিন্তু অ্যালকোহল ব্যবহার করছেন না। সুতরাং এটি ব্যবহার করা নাজায়েজ হবে না, বরং জায়েজ হবে। তবে মাত্রা যদি অনেক বেশি হয়, তাহলে সে ক্ষেত্রে একটি মাসআলা হতে পারে। কিন্তু এমনটি মনে হয় কোথাও আমরা দেখিনি।
-বিডি২৪লাইভ

Related Post