আজ যে কিশোরী আগামী দিন সেই হবে মা। তাই মা হবার আগে তার স্বাস্থ্য সুরক্ষা করা ব্যক্তি, পরিবার তথা রাষ্ট্রের দায়িত্ব। আর রাষ্ট্রীয় দায়িত্বেই কিশোরীদের দেয়া হয় টিটি টিকা।

টিটেনাস টিকা কেন নিতে হয়?

হবু মায়েদের টিটি টিকা নিতে হবে যেন বাচ্চার ধনুষ্টঙ্কার না হয়। যদি আগে কোণ টিকা নেওয়া না থাকে, তবে সবগুলোই দিতে হবে। টিটেনাস টক্স্যয়েডের টিকা দেওয়া হলে শুধু মা হবার পরও সুরক্ষা দেবে ধনুষ্টঙ্কার হবার আশঙ্কা থেকে।

এই টিকা দেবার নিয়ম :

এই টিকাটির মোট ৫টি ডোজ নিতে হয়। এর মাধ্যমে সন্তান জন্মদানের সময় টিটেনাস প্রতিরোধ করে জীবন রক্ষা করা যায়।

১ম ডোজটি দিতে হয় ১৫বছর বয়সে। ২য় ডোজ দিতে হয় ১ম ডোজের ৪মাস পর। ৩য় ডোজ দিতে হয়ে ২য় ডোজের ৬মাস পর। ৪র্থ ডোজ দিতে হয় ৩য় ডোজের ১বছর পর। ৫ম ডোজ দিতে হয় ৪র্থ ডোজের ১বছর পর।

সময় লাগবে কতদিন?

টিকা দেওয়ার জন্য রেজিস্ট্রেশন কার্ড করতে হয়। টিটি টিকার ডোজ পূরণ হতে সময় লাগে দুই বছর সাত মাস। দীর্ঘ ডোজের সময় ভূল এড়ানোর জন্য রেজিস্ট্রেশন কার্ড করতে হয়।

সময় মত টিকা দিতে না পারলে :

কেউ যদি ১৫বছর বয়সে টিটেনাস টিকা না নিয়ে থাকেন, তবে তিনি চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী পরবর্তী সময়ে টিকা নিতে পারেন।

টিকা কোথায় পাওয়া যায়?

এই টিকা সূর্যের হাসি চিহ্নিত ক্লিনিক, মেরিস্টোপস ক্লিনিক, বড় হাসপাতাল, সরকারি হাসপাতাল, মেডিকেল কলেজ, ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারেও পাওয়া যায়। সরকারি হাসপাতাল ও স্বাস্থ্য কেন্দ্রে প্রতি রবিবার সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত টিকা দেওয়া হয়।

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া এড়াতে করণীয় :

ইনজেকশন দেওয়া স্থানে লালচে গোটা হয়ে ফুলে যেতে পারে। ব্যথা থাকে, জ্বলে। অনেকেরই জ্বর চলে আসে। জ্বর দুই তিন দিন স্থায়ী হতে পারে। এ নিয়ে দুশ্চিন্তার কোন কারন নেই। টিকা দেওয়ার পর বাহুর পেশিতে হাত দিয়ে ম্যাসাজ করতে থাকুন বরফ ঘষে লাগান ৩০-৪০মিনিট।

বিঃ দ্রঃ চার থেকে ১০দিনের মধ্যে ব্যথা ভালো না হলে, গরম ও লালচে হয়ে ফুলে গেলে, দ্রুত চিকিৎসকের শরনাপন্ন হোন। কারন এটি অস্বাভাবিক প্রক্রিয়া।

Related Post