হাইপারটেনশনে ভুগছেন যারা তাদের দৈনন্দিন খাদ্যের তালিকায় নারকেলের পানি যোগ করা প্রয়োজন। নারকেলে পটাশিয়ামের মাত্রা বেশি থাকে বলে এটি উচ্চ রক্তচাপ কমায়। যদিও নারকেল তেলকে রান্নায় ব্যবহার করা নিয়ে অনেক দ্বিমত আছে। তবে চিকিৎসকদের একাংশ বলছেন, ডায়েটে নারকেল অবশ্যই যোগ করুন।

নারকেল একটি চমৎকার ফল। নারকেল সমস্ত ভিটামিন, খনিজ এবং ক্যালোরিতে অবিশ্বাস্যভাবে সমৃদ্ধ। এটি এমন একটি ফল যা বিভিন্ন রেসিপিতে আপনি নিজের মতো করে ব্যবহার করতে পারেন। প্রতিদিনের খাবারে স্বাদ আনার জন্য আপনার সবজিতে সামান্য নারকেল গুঁড়ো যোগ করুন।

নারকেলের পানির উপকারিতা: নারকেলের পানিতে সব ধরনের ভিটামিন এবং খনিজ রয়েছে। নারকেলের পানি শরীরে ইলেক্ট্রোলাইট ভারসাম্যহীনতা ফিরিয়ে আনে এবং নিজেকে হাইড্রেটেড রাখার জন্য এই পানীয় চমৎকার। হাইপারটেনশনে ভুগছেন যারা তারা প্রতিদিন নারকেলের পানি খেতে পারেন। নারকেলে পটাশিয়ামের মাত্রা বেশি থাকায় এটি উচ্চ রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে। অ্যাসিড রিফ্লাক্সে ভুক্তভোগীদের জন্যও নারকেলের পানি দুর্দান্ত, যা আপনার শরীরের অ্যাসিডের মূল স্তর নিয়ন্ত্রণে রাখে। অ্যাসিডিটি বা অম্লতা এড়ানোর জন্য সকালে নারকেলের পানি পান করুন!

এখানেই শেষ না। কয়েকটি গবেষণার তথ্যে পাওয়া গেছে, নারকেলের তেলও আপনার স্মৃতিশক্তি বাড়িয়ে তুলতে সাহায্য করে। ভুলে যাওয়া, ডিমেনশিয়া এবং আলঝেইমার্সের মতো রোগও প্রতিরোধ করে নারকেল। এছাড়া ওজন কমাতে চাইলে খাদ্যের তালিকায় নারকেল রাখতে পারেন। নারকেলের মধ্যে প্রচুর ফাইবার থাকায় তা পুষ্টিপদার্থ ধীরে ধীরে শোষণ করে এবং দীর্ঘ সময়ের জন্য আপনার পেট ভরা রাখা।

Related Post