খাতা চ্যালেঞ্জ করে- যশোর শিক্ষাবোর্ডে জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) পরীক্ষার খাতা পুনঃনিরীক্ষণে ১৫৯ জনের ফল পরিবর্তন হয়েছে। এর মধ্যে অকৃতকার্য ৬ পরীক্ষার্থী পেয়েছে জিপিএ-৫। বিষয়টি নিশ্চিত করে শিক্ষাবোর্ডের সচিব প্রফেসর তবিবর রহমান জানিয়েছেন, এ বছর ১০ হাজার ৭৮৬ জন পরীক্ষার্থী প্রকাশিত ফলাফল চ্যালেঞ্জ করে পুনঃনিরীক্ষণের জন্য আবেদন করেছিল। বৃহস্পতিবার সেই পুনঃনিরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হয়েছে। তিনি বলেন, মোট ১৫৯ জন পরীক্ষার্থীর ফল পরিবর্তিত হয়েছে। এরমধ্যে অকৃতকার্য ৬ পরীক্ষার্থী পুনঃনিরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়েছে, সি-গ্রেড থেকে ১৪ জন, বি-গ্রেড থেকে ৫ জন, এ-মাইনাস থেকে ২১ জন ও এ-গ্রেড থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে আরও ৩৭ জন পরীক্ষার্থী।

এছাড়া বিভিন্ন গ্রেড থেকে এ গ্রেডে উন্নীত হয়েছে ২৫ জন পরীক্ষার্থী। একইসঙ্গে ৬১ জন পরীক্ষার্থীর বিভিন্ন গ্রেডে ফল পরিবর্তন হয়েছে।
সিলেটের ৯ বছরের কায়রান যুক্তরাষ্ট্রের কলেজে ভর্তি, বিশ্ব মিডিয়ায় প্রশংসা
নয় বছরের শিশু যুক্তরাষ্ট্রের কলেজে ভর্তি হয়ে চমক সৃষ্টি করেছে সিলেটের বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত কায়রান। তার এমন প্রতিভার প্রশংসা করছে বিশ্ব গণমাধ্যম।
যুক্তরাষ্ট্রের কলেজগুলোতে শিক্ষার্থীদের ভর্তির গড় বয়স যেখানে ১৭-১৯, খুব মেধাবী হলেও ১৪-১৫ বছরের নিচে ভর্তির রেকর্ড খুবই কম। সেখানে কায়রান কলেজে ভর্তি হয়েছে মাত্র ৯ বছর বয়সে! তাও যেনতেন কোনো বিষয় নয়, রীতিমতো গণিত ও রসায়ন নিয়ে পড়ছে সে।
মাত্র ৯ বছর বয়সে কলেজে ভর্তি হওয়া কায়রানের এমন অভাবিত প্রতিভার খবর প্রথমে সবার সামনে তুলে ধরে হাফিংটন পোস্ট। কায়রানের মায়ের নাম জুলিয়া চৌধুরী কাজী ও বাবা মোস্তাহিদ কাজী। তাদের পূর্বপুরুষ সিলেটের বাসিন্দা। এদিকে হাফিংটন পোস্টে খবর প্রকাশের পর যুক্তরাষ্ট্রে কায়রানকে আমন্ত্রণ জানানো হয় জনপ্রিয় টিভি শো ‘গুড মর্নিং আমেরিকাতে’। পরে ডেইলি মেইল, আইরিশ টাইমস ও পশ্চিমা গণমাধ্যমও তাকে নিয়ে বেশ কয়েকটি সংবাদ প্রকাশ করেছে। শিক্ষামন্ত্রীর ফোন পেয়ে অবাক শিক্ষক: টাকার অভাবে কলেজে ভর্তির সুযোগ না পেয়ে শিক্ষাজীবনের ইতি টানতে বাধ্য হচ্ছিল কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলার দুর্গম চর শৌলমারির অধিকাংশ ছাত্রী। উপজেলা সদর থেকে প্রায় ১৪ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত ব্রহ্মপুত্রের এই দুর্গম চরাঞ্চলে নারী শিক্ষার আলো ছড়াতে দুঃসাহসী উদ্যোগ নেন স্থানীয় যুবক হুমায়ুন কবির। সরকারি অনুদানের তোয়াক্কা না করে নিজ উদ্যোগে গড়ে তোলেন চর শৌলমারি আদর্শ মহিলা মহাবিদ্যালয়। হুমায়ুন নিজেই কলেজের অধ্যক্ষ।দুটি টিনের ঘরে আটটি ক্লাস রুম। ছাত্রীদের কারও বেতন দেওয়ার সামর্থ্য নেই। উল্টো তাদের কিনে দিতে হয় বইপত্র। এমন প্রেক্ষাপটে হুমায়ুনের নেতৃত্বে নয়জন শিক্ষক ও সাতজন কর্মচারী চালাচ্ছেন কলেজের কার্যক্রম। শিক্ষকরা গ্রামের বিভিন্ন বাড়িতে টিউশনি করে যে টাকা পান; তা ব্যয় করেন কলেজের ছাত্রীদের পেছনে। নিবেদিতপ্রাণ এই শিক্ষকের সংগ্রামের খবর পেয়ে গতকাল বুধবার সকালে তাকে সরাসরি ফোন করেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। তিনি হুমায়ুন কবিরকে উৎসাহ দেওয়ার পাশাপাশি তার প্রতিষ্ঠান পরিচালনায় সব ধরনের সহযোগিতারও আশ্বাস দিয়েছেন। এরপর নিজের অনুভূতির কথা সাংবাদিকদের জানালেন কুড়িগ্রামের চর শৌলমারি আদর্শ মহিলা মহাবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ হুমায়ুন কবির। তিনি জানান, ‘কখনো ভাবিনি শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি আমাকে কল করবেন। আমি বিশ্বাস করতে পারছিলাম না সত্যিই শিক্ষামন্ত্রী আমাকে ফোন করেছেন। তার এই ফোনকল আমার জীবনের সেরা অর্জন। যতই বাধা আসুক, আমি শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দেয়ার এই প্রয়াস চালিয়ে যাবো। ’ আবেগ আপ্লুত এই শিক্ষক বলেন, ‘সরকারের একজন মন্ত্রী এভাবে ফোন করে খোঁজ-খবর নেবেন তা কখনও আশা করিনি। তিনি (মন্ত্রী) আমাদের প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন সমস্যার কথা শোনেন এবং সেগুলো সমাধানের আশ্বাস দেন।’ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানান, কুড়িগ্রামের দুগর্ম চরাঞ্চলে নারী শিক্ষা ছড়িয়ে দিতে অধ্যক্ষ হুমায়ুন কবির যে অবদান রেখে চলেছেন তা নজরে আসার পর শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বুধবার সকাল ৯টায় তাকে স্বাগত জানাতে ফোন করেন। মন্ত্রণালয়ে আসার পথে গাড়িতে বসেই তিনি ফোন করেন অধ্যক্ষ হুমায়ুনকে। ওপাশে ফোন রিসিভ হওয়ার পর তিনি বলেন, ‘আমি দীপু মনি বলছি। শিক্ষামন্ত্রী। কেমন আছেন?’ এসএমএসে চাকরি পাওয়ার খবর পেল ৪০ হাজার তরুণ: বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রায় ৪০ হাজার শূন্যপদে নিয়োগের জন্য সুপারিশকৃতদের তালিকা প্রকাশ করেছে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ)।বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে আটটায় এনটিআরসিএর ওয়েবসাইটে (ngi.teletalk.com.bd) এ তালিকা প্রকাশ করা হয়। এরপর চাকরিপ্রত্যাশীদের মোবাইল ফোনে এসএসএস দিয়ে সে সিদ্ধান্ত জানিয়েও দেওয়া হয়। এই নিয়োগে কোনো চাকরিপ্রার্থীদের কাছ থেকে অবৈধ অর্থ লেনদেনের সুযোগ ছিল না। শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষায় উত্তীর্ণরা আবেদন করেছেন। তার আগে প্রকাশ হয়েছে জাতীয় মেধাতালিকা। আবেদন করার পর মেধাতালিকা অনুযায়ী নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। এই ধরনের নিয়োগ এ নিয়ে দ্বিতীয়বারের মতো হলো। তবে এত বড় আকারে এই প্রথম। এই পদ্ধতি চালু হওয়ায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিয়োগের ক্ষেত্রে ঘুষ, দুর্নীতির অবসানের পথে বড় অগ্রগতি হয়েছে। এর আগে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ হতো স্থানীয় পর্যায়ে। স্থানীয় জনপ্রতিনিধি এবং পরিচালনা পর্ষদের সিদ্ধান্তই ছিল চূড়ান্ত। আর সেখানে নানা ধরনের অভিযোগ উঠত। তবে এই পদ্ধতিতে নিয়োগে অভিযোগ থাকার সুযোগ নেই। গতকাল সন্ধ্যায় সিলেটে অনুষ্ঠিত এক গণশুনানিতে এনটিআরসিএ চেয়ারম্যান বলেন, ‘আমি যা করেছি, তা আপনাদের ভেতরের কান্না অনুধাবন করেই করেছি। আপনাদের বাবা-মারা আপনাদের দুঃখ যতটুকু না বুঝেন এর চেয়ে বেশি আমি বুঝি। আমি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। যতদিন আছি, শুধু আপনাদের স্বার্থই দেখে যাব।’ ‘আল্লাহর নাম নিয়ে বলছি-নিয়োগের ক্ষেত্রে কোনো লেনদেন হয়নি, হবেও না। এনটিআরসিএর কেউ ঘুষ নিয়েছে প্রমাণ করলে আমি চাকরি ছেড়ে দেব।’
চলতি বছর শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আরো এক লাখ নিয়োগ দেওয়ার চেষ্টা করা হবে বলেও জানান এনটিআরসি প্রধান। ন্যূনতম ৮০ হাজার নিয়োগ হবে বলেও নিশ্চিত করেন তিনি। গত ১৯ ডিসেম্বর বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ৩৯ হাজার ৫৩৫টি শূন্য পদে শিক্ষক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ।

কর্মকর্তারা জানান, সুপারিশকৃত প্রার্থীদের তালিকা ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়েছে। এরপর সুপারিশপত্র প্রকাশ করা হবে। সুপারিশকৃত প্রার্থীরা নিজ নিজ পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে সুপারিশপত্রটি ডাউনলোড করে নিবেন। কোনও প্রতিষ্ঠান সুপারিশকৃতদের নিয়োগে বাধা দিলে তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এ সংক্রান্ত অভিযোগ পেলে এনটিআরসি থেকে শিক্ষা বোর্ডকে বিষয়টি জানানো হবে। বোর্ড প্রতিষ্ঠানের পরিচালনা কমিটি ভেঙ্গে দেবে। গত ১৮ ডিসেম্বর বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রায় ৪০ হাজার শূন্য পদে শিক্ষক নিয়োগ দিতে গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ)। এ বিজ্ঞপ্তি অনুসারে শিক্ষক পদে ৩১ লাখ আবেদন জমা পড়ে।

Related Post

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •