হলিউড সিনেমার শুটিং- হলিউড সুপারহিরো ক্রিস হেমসওর্থের নতুন ছবির কাজ নিয়ে বাংলাদেশি দর্শকদের আগ্রহের শেষ ছিল না। এর বিশেষ কারণ হলো ছবির নামটি- ঢাকা। দর্শকদের ধারনা ছিল হয়তো ছবিটির শুটিং ঢাকা শহরে হতে পারে। তবে চলচ্চিত্রটির প্রেক্ষাপট বিহারের ঢাকা নাকি বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা- তা নিয়ে দ্বিধা থেকেই গিয়েছিল। কিন্তু সব সংশয় কাটিয়ে ভারতের আহমেদাবাদে শুরু হয় সিনেমাটির শুটিং। এদিকে এখন চলচ্চিত্রটির দৃশ্যধারণের বেশ কিছু ভিডিওচিত্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ঘুরে বেড়াচ্ছে। যা দেখলে যে কেউ বলে উঠবে ‌‘এ তো বাংলাদেশের ঢাকা’! কারণ ছবিটির দৃশ্যধারণ ভারতের আহমেদাবাদে হলেও পুরো সেট ডিজাইন করা হয়েছে ঢাকার শহরের আদলে।

শুটিংয়ের একটি দৃশ্য: স্থান ভারতের আহমেদাবাদ, অথচ যানবাহনগুলো ঢাকার আদলে! আর সেটি স্পষ্ট করার জন্য এতে রাখা হয়েছে বাংলাদেশের রিক্সা, সবুজ রঙের সিএনজি (অটো রিক্সা) আর বাংলা নামে লেখা গণ পরিবহন। বেশ কিছু ভিডিওতে দেখা যায় এগুলো। যার একটি বাসের গায়ে বাংলায় লেখা ছিল, ‘হাসিনা পরিবহন সার্ভিস’! গত নভেম্বরে ছবিটির দৃশ্যধারণ হয় ভারতের ঐ শহরে। তখনই ধারণ করা হয়েছিল বেশ ‍কিছু ভিডিও। নেটফ্লিক্সের জন্য নির্মিত এ ছবি জিম্মিদশা নির্ভর অ্যাকশন থ্রিলার ধাঁচের। এতে প্রধান নায়কের ভূমিকায় থাকছেন ‘থর’ তারকা ক্রিস হেমসওর্থ। ছবিটির কাহিনি ও চিত্রনাট্য লিখেছেন রুশো ভ্রাতৃদ্বয়। গল্পে দেখা যাবে, ঢাকা শহরে অপহরণ হওয়া ভারতের একটি ছেলেকে উদ্ধারে সহযোগিতা করবে হেমসওর্থের চরিত্রটি। ‘ঢাকা’ পরিচালনা করছেন স্যাম হারগ্রেভ। মাহফুজুর রহমানের কটাক্ষের কড়া জবাব দিল পপি: সম্প্রতি একটি ছবি ও ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। ছবিদে দেখা যায়, বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল এটিএন বাংলা ও নিউজের চেয়ারম্যান মাহফুজুর রহমান হালের জনপ্রিয় নায়িকা পপির গালে মেকআপ করে দিচ্ছেন। ছবিটি নিয়ে হাস্যরসের সৃষ্টি হয়। আর সোমবার রাজধানীর কারওয়ানবাজারে এটিএন বাংলার কার্যালয়ে ‘সময় ও অসময়ের গল্প’ সিরিজের নাটকের সংবাদ সম্মেলনে এ নিয়ে কথা বলেন মাহফুজুর রহমান। মাহফুজুর রহমান বলেন, ‘পপি একটা ছবি ছড়িয়ে দিয়েছিল, তাকে আমি মেকআপ করে দিচ্ছি। ওই শয়তান মেয়েটা এটি করল। ওর এ জিনিসটা করা খুবই জঘন্যতম কাজ হয়েছে। সে লিখেছে- এখন থেকে পপির নতুন মেকআপম্যান মাহফুজুর রহমান। কত জঘন্য কাজ এটি বলেন…। তার পর থেকে পপিকে এই এরিয়ার (এলাকায়) মধ্যে আমি ঢুকতে দিই না। মাহফুজুর রহমান বলেন, পপি হারামজাদী। পর পর ৫টা ছবিতে আমি তাকে নিয়েছি। তার পরও সে এমনটি করল। এদিকে, মাহফুজুর রহমানের বিষোদগারের জবাব দিয়েছেন চিত্রনায়িকা সাদিকা পারভীন পপি। তিনি নারীর প্রতি সম্মান রেখে মাহফুজুর রহমানকে কথা বলার পরামর্শ দেন। পপি বলেন, নারীর প্রতি মাহফুজুর রহমানের সম্মান রেখে কথা বলা উচিত। তিনি মাহফুজুর রহমানের শুভবুদ্ধির উদয় হওয়ার আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন। মাহফুজুর রহমান স্যারের শুভ বুদ্ধির উদয় হোক। অনেক বড় মাপের মানুষ তিনি। তবে আমি বলব, নারীর প্রতি সম্মান রেখে কথা বলা উচিত। শিল্পীদের প্রতি সম্মান দেয়া দরকার।

মেকআপ করিয়ে দেয়ার ঘটনার বিবরণ দিয়ে পপি বলেন, আমি একটি সিনেমার শুটিংয়ের জন্য এফডিসিতে মেকআপ করছিলাম। সেই সেটে মাহফুজুর রহমান স্যার এসেছিলেন। তিনি যখন দেখেন আমার মেকআপম্যান ঠিকমত মেকআপ করতে পারছিল না, তখন তিনি নিজেই আমার মেকআপ ঠিক করে দেন। পপি আরও বলেন, সেই সময় (মেকআপ) সেখানকার পরিবেশটা হাস্যোজ্জ্বল ছিল। শুটিং সেটে চলচ্চিত্র অঙ্গনের লোকজন ছাড়াও অনেক সংবাদকর্মী এবং আলোকচিত্রীও ছিলেন। সবাই সেই ছবি তুলে ফেলেন। সেই ছবি নিয়ে পত্রিকাসহ গণমাধ্যম সংবাদ প্রকাশ করে। মেকআপ বিষয়ে কোন নিউজ করতে নির্দেশনা দেননি জানিয়ে পপি বলেন, আমি আজ পর্যন্ত কোনো সাংবাদিককে ফোন করে বলিনি আমার সংবাদ করতে, তাঁরা নিজেরাই ফোন করে আমার কাছ থেকে সংবাদ সংগ্রহ করেন। আমি জানি না, আমার দোষটা কোথায়?

Related Post

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •