বাংলাদেশে মুসলিমদের বিভক্তি দিন দিন বেড়েই চলছে। আগে ছিল ওহাবী-সুন্নী মতভেদ।আর এখন মাযহাবী আর লা মাযহাবী মতভেদ । গণতান্ত্রিক মতভেদ তো আছেই । বাংলাদেশে পঞ্চাশের ও বেশী ইসলামী দল আছে। পীর ভিত্তিক ডিভিশন ও আছে । সরকারী আর ক্বাওমী মাদ্রাসা পড়ুয়াদের মাঝে ও মনস্তাত্তিক দ্বন্দ্ব কম নয়। মুসলিমদের বিভক্তিতে ইসলাম বিরোধীদের ধারাবাহিক চক্রান্ত লেগেই আছে এবং তারা এতেই অনেক খুশি।মুসলিমরা যদি এক হয়ে যেতেন তাহলে বাংলাদেশের পরিবার,সমাজ ও রাষ্ট ব্যবস্থ্যা কুরআন অনুযায়ী চলতো। মুসলিম- নন মুসলিম সুখ ও শান্তিতে বসবাস করতো। এবং বর্তমান হয়েছে তাবলীগের মাঝে ইত্যাদি বিভক্ত।
আল্লাহ তায়ালা বলেন,
﴿ وَاعۡتَصِمُوۡا بِحَبۡلِ اللّٰهِ جَمِيۡعًا وَّلَا تَفَرَّقُوۡا‌ وَاذۡكُرُوۡا نِعۡمَتَ اللّٰهِ عَلَيۡكُمۡ اِذۡ كُنۡتُمۡ اَعۡدَآءً فَاَلَّفَ بَيۡنَ قُلُوۡبِكُمۡ فَاَصۡبَحۡتُمۡ بِنِعۡمَتِهٖۤ اِخۡوَانًا‌ۚ..َ‏﴾
অর্থ- তোমরা সবাই মিলে আল্লাহ‌র রুজ্জুকে মজবুতভাবে আঁকড়ে ধরো এবং দলাদলি করো না। আল্লাহ‌ তোমাদের প্রতি যে অনুগ্রহ করেছেন সে কথা স্মরণ রেখো। তোমরা ছিলে পরস্পরের শত্রু। তিনি তোমাদের হৃদয়গুলো জুড়ে দিয়েছেন। ফলে তাঁর অনুগ্রহ ও মেহেরবানীতে তোমরা ভাই ভাই হয়ে গেছো।
সুরা মায়িদাহ, আয়াত ১০৩।
মুসলিমদের মাঝে বিশেষ করে আলেমদের মাঝে দুরুত্ব না রেখে আন্তরিক হওয়া জরুরী। ছোট খাট মতভেদকে পরিহার করে দ্বীনের জন্য একে অপরকে ভালবাসা জরুরী। হিংসুক এবং অহংকারী ইসলাম ও মানবতার দুশমন।

তাই আসুন, আমরা একে অপরকে ভালবাসার মাত্রাটা বাড়িয়ে দেই।
সরকারি , বেসরকারি, দরবারি, তাবলিগি, গোলটুপি, লম্বাটুপি, মাযহাবি, লা- মাযহাবি, তরিকতি আর মা’রেফাতি এতাতি ও ওলামা ইত্যাদি ডিভিশন না করে ”মুসলিম” পরিচয়ে একে অপরকে ভালবাসা দরকার। আমি ব্যক্তিগতভাবে কোনো ব্যক্তিকে তার উপরের কোনো বিশেষণের কারণে ঘৃণা করি না । সব মুসলিমকে আমার ভাল লাগে।

Related Post