এভাবে আর কখনও- তিন বন্ধু আব্দুল্লাহ আল মাফুজ ওরফে সাকিব, জাকিরুল ইসলাম জনি ও রাশেদুল ইসলাম রাজা। এদের একজন অনার্স প্রথম বর্ষের। বাকি দুইজন এইচএসসি পরীক্ষার্থী। ঘোরাঘুরি পছন্দ তাদের। পড়াশোনার ফাঁকে মাঝে মাঝেই তাদের লং ড্রাইভে যাওয়া হতো। একসঙ্গে ঘুরে বেড়াতেন, সেলফি তুলতেন। তাদের সেই দিনগুলি এখন কেবলই স্মৃতি। এই তিন বন্ধু আর কখনও একসঙ্গে সেলফি তুলবে না। ঘুরে বেড়াবে না। বাবা-মায়ের কাছে এটা ওটা নিয়ে বায়না ধরবে না। একটি দুর্ঘটনা তাদের সবকিছু থামিয়ে দিয়েছে। রোববার ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের ইটাহাটা এলাকায় বাসের চাপায় নিহত হয়েছেন ওই তিন বন্ধু।

নিহতরা হলেন, কালিয়াকৈর উপজেলার ক্ষিণ মৌচাক এলাকার মৃত. মোজাহার মিয়ার ছেলে আব্দুল্লাহ আল মাফুজ ওরফে সাকিব, জামালপুরের ইসলামপুর থানার পচাবহলা এলাকার জয়নাল আবেীনের ছেলে জাকিরুল ইসলাম জনি ও টাঙ্গাইলের নাগরপুর থানার রেহাই মিরকুটিয়া এলাকার নুর হোসেনের ছেলে রাশেদুল ইসলাম রাজা। জানা যায়, সাকিবের বাবা মোজাহার মিয়া বছর দুয়েক আগে অসুস্থ অবস্থায় মারা যান। তার এ বছর এইচএসসি পরিক্ষা দেওয়ার কথা ছিল। আরেক বন্ধু রাজারও এ বছর এইচএসসি পরিক্ষা ওেয়ার কথা ছিল। অপর বন্ধু জনি ভাওয়াল বদরে আলম সরকারি কলেজের অনার্স ১ম বর্ষের ছাত্র ছিলেন। তারা কালিয়াকৈরের মৌচাক এলাকায় পাশাপাশি বাসায় থাকতেন। পাশাপাশি থাকতেন বলে তাদের মধ্যে গভীর বন্ধু গড়ে উঠে। সাকিবের মোটরসাইকেল সার্ভিসের জন্য রোববার সকালে তারা তিনজন একত্রে গাজীপুর যাচ্ছিলেন। সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহসড়কের গাজীপুরের ইটহাটা এলাকায় বাসের ধাক্কায় মোটরসাইকেল থেকে তারা তিন বন্ধু সড়কের উপর ছিটকে পড়ে। এতে ঘটনাস্থলেই নিহত হন। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে নিহতদের লাশ উদ্ধার করে গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দিন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।

## এক পাগলকে বাঁচাতে গিয়ে ঝরল ৫ ছাত্রলীগ-যুবলীগ নেতার প্রাণ: খুলনার রূপসা সেতুর বাইপাস সড়কে রোববার রাতে ট্রাকচাপায় নিহত ৫ প্রাইভেটকার আরোহীই গোপালগঞ্জের ছাত্রলীগ ও যুবলীগের নেতা। এক পাগলকে বাঁচাতে গিয়ে ট্রাকের সঙ্গে প্রাইভেটকারটির সংঘর্ষ হয়। নিহতরা হলেন- গোপালগঞ্জ শহরের সবুজবাগের অ্যাডভোকেট আবদুল ওয়াদুদ মিয়ার ছেলে ও গোপালগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুব হাসান বাবু, একই এলাকার মৃত আলাউদ্দিন শিকদারের ছেলে ও গোপালগঞ্জ সদর যুবলীগের সহ-সভাপতি সাদিকুল আলম, থানাপাড়ার গাজী মিজানুর রহমানের ছেলে ও জেলা ছাত্রলীগের উপ-সম্পাদক ওয়ালিদ মাহমুদ উৎসব, গেটপাড়া এলাকার আলমগীর হোসেন মোল্লার ছেলে ও জেলা ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক সাজু আহমেদ এবং চাদমারী এলাকার ওয়াহিদ গাজীর ছেলে ও জেলা ছাত্রলীগের সদস্য অনিমুল ইসলাম গাজী। এদের মধ্যে সাদিকুল গাড়ি চালাচ্ছিলেন।লবণচরা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শফিকুল ইসলাম জানান, প্রাইভেটকারটি (ঢাকা মেট্রো গ ৩৫-০০২৫) মহানগরের জিরো পয়েন্ট এলাকা থেকে যাচ্ছিল। আর রূপসা সেতু থেকে আসছিল সিমেন্টবোঝাই ট্রাকটি (ঢাকা মেট্রো ট ১৮-২৫৮৪)। দু’টি গাড়ি যখন খাজুর বাগান অতিক্রম করছিল, তখন এক ভবঘুরে পাগল প্রাইভেটকারের সামনে এসে পড়লে তাকে বাঁচাতে গিয়ে প্রাইভেটকার ও ট্রাকের এ সংঘর্ষ হয়। এতে প্রাইভেটকারের ভেতরে থাকা পাঁচ ছাত্রলীগ ও যুবলীগ নেতাই প্রাণ হারান। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে যায় পুলিশ। ট্রাকটি জব্দ করা হলেও চালকসহ অন্যরা পালিয়ে যায়। এদিকে মরদেহগুলো রাতেই গোপালগঞ্জ সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। রোববার খুলনায় ওই পাঁচজন বেড়াতে এসেছিলেন। সোমবার বাদজোহর গোপালগঞ্জ স্টেডিয়ামে নামাজের জানাজা শেষে তাদের দাফন করা হবে।

## খুলনায় ৬৫ জন শিক্ষার্থী নিয়ে উল্টে গেল পিকনিকের বাস: খুলনায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পিকনিকের বাস উল্টে মেঘলা নামে এক স্কুলছাত্রী নিহত হয়েছে। এতে আহত হয়েছে অন্তত ৩০ জন শিক্ষার্থী। সোমবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে সাতক্ষীরা-খুলনা সড়কের ডুমুরিয়া উপজেলার চুকনগরের চাকুন্দিয়া নামক স্থানে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত মেঘলা যশোর সদর উপজেলার শ্যামনগর মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী। বাসটিতে ৬৫ জন শিক্ষার্থী ছিল বলে জানা গেছে। ডুমুরিয়া থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমিনুল ইসলাম বিপ্লব বলেন, সকালে শ্যামনগর মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা তিনটি বাসে করে বাগেরহাটের ষাটগম্বুজ মসজিদের উদ্দেশ্যে রওনা হয়। পথে ডুমুরিয়ার চুকনগরের চাকুন্দিয়া নামক স্থানে এসে একটি বাস উল্টে পড়ে হতাহতের ঘটনা ঘটে। স্থানীয়রা জানান, রাস্তায় সংস্কার কাজ চলায় কারণে গর্ত ছিল। সেই গর্তে বাসটি আটকে যায়। আটককে যাওয়া বাসটি চালাতে গেলে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে অনন্ত ২০ ফুট দূরে উল্টে পড়ে। এতে ঘটনাস্থলেই অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী মেঘলা নিহত হয়। এতে আরও অন্তত ৩০ জন শিক্ষার্থী আহত হয়। আহতদের উদ্ধার করে প্রথমে ডুমুরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। পরে তাদের গুরুতর আহতদের খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। বাসটিতে ৬৫ জন শিক্ষার্থী ছিল বলে তারা জানান।

## ব্রিজ ভেঙে ড্রেনে বরসহ ১৫ জন বরযাত্রী: নয়ডার হোশিয়ারপুরে গত শনিবার বিয়ে ছিল বছর ৩৫-এর অমিত যাদব এবং ৩২ বছর বয়সি সোনমের। বিয়েবাড়ির জন্য ভাড়া নেওয়া ব্যাঙ্কোয়েট হলের গেট থেকে লন পর্যন্ত তৈরি করা ছিল সুন্দর একটা ব্রিজ।

বিয়ে করতে ঢোকার আগে সেই ব্রিজের উপর উঠেই নাচছিল ১৫জনের বরযাত্রীর দলটা। দলে ছিলেন স্বয়ং বরও। হঠাৎই ছন্দপতন! হুড়মুড়িয়ে ভেঙে পড়ল ব্রিজ, আর বরসহ গোটা বরযাত্রীর দল সোজা নীচে থাকা ড্রেনের জলে ঝপাং!

সেই সময় ঠিক ব্রিজের উলটো দিকেই বরযাত্রীদের স্বাগত জানানোর জন্য অপেক্ষা করছিলেন কনের পরিবার। তাদের সামনেই ঘটে গোটা ঘটনাটা। প্রত্যক্ষদর্শীদের মতে প্রায় মিনিট দশেক ধরে ব্রিজের উপর নাচছিলেন তাঁরা। ভাগ্যক্রমে বড় কোনও অঘটন ঘটেনি, তবে অল্প আহত হয়েছে দুই শিশু। অবশ্য শেষ পর্যন্ত পরিবারের তরফে ব্যাঙ্কোয়েট মালিকের বিরুদ্ধে পুলিশে কোনও অভিযোগ করা হয়নি। ব্যাঙ্কোয়েট মালিক তিন লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণ দিয়ে মিটিয়ে নিয়েছেন বিষয়টি

Related Post