ইন্টারনেট প্যাকেজ বিক্রি- ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বারের নির্দেশনা পর কমমূল্যে ডেটা বিক্রি শুরু করেছে রাষ্ট্রীয় অপারেট টেলিটক। টেলিটকের ওয়েবাসাইটে দেখা যাচ্ছে, টেলিটক বর্ণমালা সিমে এক জিবি ইন্টারনেট দিচ্ছে ২৩ টাকায়, যার মেয়াদ ৭ দিন; এক জিবি ৪৪ টাকায়, মেয়াদ ৩০ দিন এবং ১৭৯ টাকায় ১০ জিবি, মেয়াদ ৩০ দিন। অন্যদিকে রোববার নিজের ফেসবুক ভ্যারিফাইড আইডিতে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার এক স্ট্যাটাসে জানিয়েছেন, ১ জিবি ডাটা ২১ টাকা মেয়াদ ৭ দিন, ১০ জিবি ডাটা ১৬৯ টাকা মেয়াদ ৩০ দিন-আমাদের টেলিটকে।’

মন্ত্রীর এই ফেসুবক স্ট্যাটাসে অনেকেই খুশি হলেও প্রায় সবাই মন্ত্রীকে টেলিটকের নেটওয়ার্ক সমস্যার কথা জানিয়েছেন। তাদের জন্য মন্ত্রী জানিয়েছেন, যারা টেলিটকের নেটওয়ার্ক নিয়ে সমস্যায় আছেন তাদেরকে আশ্বস্ত করছি যে দেশব্যাপী নেটওয়ার্ক উন্নয়নের কাজ আমরা করছি। একাধিক প্রকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে।

নন-এমপিও শিক্ষকদের জন্য সুখবর: এমপিওভুক্তির দাবিতে দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন করে আসছেন নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীরা। এরই পরিপ্রেক্ষিতে এক সংবাদ সম্মেলনে এমপিওভুক্তির দাবিতে নতুন কর্মসূচির ঘোষণা করে নন-এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান শিক্ষক-কর্মচারী ফেডারেশন। এর আগে বুধবার সংগঠনের এক সভায় চার দফা কর্মসূচির ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সংগঠনের পক্ষ থেকে চার দফা কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে ১৫ ফেব্রুয়ারির মধ্যে সকল জেলা ও উপজেলা কমিটি পুনঃগঠন, ১৯ ফেব্রুয়ারি বেলা ১১টায় একযোগে সকল জেলায় মানববন্ধন শেষে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী ও শিক্ষামন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি এবং ২৬ ফেব্রুয়ারি বেলা ১১টায় ঢাকায় জাতীয় প্রেসক্লাবে স্বীকৃতিপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান একযোগে এমপিওভুক্তির জন্য সংবাদ সম্মেলন। সেখানে পরবর্তী কর্মসূচির ঘোষণা করা হবে। এ ব্যাপারে নন-এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান শিক্ষক-কর্মচারী ফেডারেশনের সভাপতি অধ্যক্ষ গোলাম মাহমুদুন্নবী ডলার বলেন, আমরা দীর্ঘদিন ধরে এমপিওভুক্তির জন্য আন্দোলন করে আসছি। টানা দুইমাস রাজপথে থেকে আমরা আন্দোলন করেছি। সরকারের সকল মহল থেকে আমাদের দাবি বাস্তবায়নের আশ্বাস দিয়ে যাচ্ছেন। তিনি আরো বলেন, সম্প্রতি আমরা শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছি। তিনিও আমাদের বিষয়টি নিয়ে কাজ করা হচ্ছে বলে অপেক্ষা করতে বলেছেন। অথচ আমাদের শিক্ষক-কর্মচারীরা মানবেতর জীবন-যাপন করছে, কেউ মুখ তুলে দেখছেন না। এ কারণে আমরা নতুনভাবে আন্দোলনে নামার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। ‘জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে সরকারের দেয়া প্রতিশ্রুতির দ্রুত বাস্তবায়নে এ আন্দোলনে যাচ্ছেন তারা’ বলেও জানান তিনি। শিক্ষক নেতারা জানান, নির্বাচনের আগে এমপিওভুক্তির ব্যাপারে বেশ অগ্রগতি থাকলেও এখন সেটি থমকে গেছে। চলতি বছর বাজেটে এমপিওভুক্তির জন্য প্রায় ৫০০ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে। এ টাকা দিয়ে প্রায় ১ হাজার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত সম্ভব হবে।

শিক্ষকরা বলছেন, এমপিভুক্ত করার জন্য সব প্রক্রিয়া শেষ। এখন শুধু ঘোষণার বাকি। নতুন বাজেটের আর চার মাস বাকি। এর মধ্যে এমপিও ঘোষণা না হলে এ টাকা ফেরত যাবে। দ্রুত এমপিওভুক্তির ঘোষণা দেয়ার দাবি জানান তারা। শিক্ষকদের এই আন্দোলনের বিষয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের যুগ্ম সচিব সালমা জাহান বলেন, ‘আন্দোলন করার কোনো প্রয়োজন নেই। নতুন এমপিও অবশ্যই হবে। ইতোমধ্যে মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে সব কাজও শেষ হয়েছে। এখন শুধু সরকারের সর্বোচ্চ পর্যায় থেকে সিদ্ধান্তের অপেক্ষা। আশা করছি খুব শিগরই ঘোষণা দেয়া হবে।’

Related Post